গোপালগঞ্জে বিজয়ী প্রার্থীরা।

তৃতীয় দফায় উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে গোপালগঞ্জের ৫টি উপজেলায় বেসরকারিভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলেন যারা তারা হলেন গোপালগঞ্জ সদর উপজেলায় শেখ লুৎফার রহমান বাচ্চু, টুঙ্গিপাড়া উপজেলায় সোলায়মান বিশ্বাস, কোটালীপাড়া উপজেলায় বিমল কৃষ্ণ বিশ্বাস, কাশিয়ানী উপজেলায় সুব্রত ঠাকুর ও মুকসুদপুর উপজেলায় মো. কাবির মিয়া।

গোপালগঞ্জ সদর উপজেলায় শেখ লুৎফার রহমান বাচ্চু দোয়াত কলম প্রতীকে ৩৭ হাজার ৬৫০ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী মাহমুদ হোসেন দিপু ঘোড়া প্রতীকে ৩৭ হাজার ৬২০ ভোট পেয়েছেন। অপর প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী শাহ আলম আনারস প্রতীকে ৩৪ হাজার ভোট পেয়েছেন ।

টুঙ্গিপাড়া উপজেলায় মো. সোলায়মান বিশ্বাস আনারস প্রতীকে ২৭ হাজার ৬০ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী মো. বাবুল শেখ দোয়াত কলম প্রতীকে পেয়েছেন ২৭ হাজার ৩২ ভোট।

কোটালীপাড়া উপজেলায় বিমল কৃষ্ণ বিশ্বাস দোয়াত কলম প্রতীকে ৬০ হাজার ২১১ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী মুজিবর রহমান হাওলাদার চিংড়ি মাছ প্রতীকে ৩৭ হাজার ১৪১ ভোট পেয়েছেন।

কাশিয়ানীতে সুব্রত ঠাকুর টেলিফোন প্রতীকে ২২ হাজার ৪১৬ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হযেছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী মো. মোক্তার হোসেন দোয়াত-কলম প্রতীকে ২১ হাজার ৭১৬ ভোট পেয়েছেন।

মুকসুদপুর উপজেলায় মো. কাবির মিয়া আনারস প্রতীকে ৭০ হাজার ৬১৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে এম এম মহিউদ্দিন আহম্মেদ মুক্ত মিয়া মোটরসাইকেল প্রতীকে ৪২ হাজার ৯৯৭ ভোট পেয়েছেন।

এখানে আওয়ামী লীগ থেকে কাউকে দলীয় মনোনয়ন দেয়া হয়নি। তবে নির্বাচিতরা সবাই আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মী।

মোজাম্মেল হোসেন মুন্না, গোপালগঞ্জ/জেবি