এম. এ. আর. শায়েল
সিনিয়র সাব এডিটর

গোলাপগঞ্জে আল-এমদাদ ডিগ্রী কলেজ রাস্তার বেহাল দশা

সিলেটের গোলাপগঞ্জ উপজেলার বুধবারীবাজার ইউনিয়নের চন্দরপুরের আল-এমদাদ ডিগ্রী কলেজ রাস্তাটি বেহাল দশায় পরিণত হয়েছে। সামান্য বৃষ্টিতেই জল-কাদা আর পিচ্ছিল রাস্তা কলেজ বিমুখ করে দিয়েছে শিক্ষার্থীদের।

শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি এ রাস্তাটি দিয়ে কালিডহর, বনগ্রাম, বাগিরঘাট ও বানিগাজী গ্রামের কয়েক হাজার মানুষের যাতায়াত। আল-এমদাদ ডিগ্রী কলেজ ছাড়াও এ রাস্তাটি দিয়ে জামেয়া মোহাম্মদীয়া বৃহত্তর চন্দরপুর মাদ্রাসা, বনগ্রাম মহিলা মাদ্রাসা, বি.কে সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও বানিগাজী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের যাতায়াত।

ফলে সামান্য বৃষ্টিতেই দুর্ভোগে পড়েন কয়েক হাজার শিক্ষার্থী, পথচারী ও সাধারণ জনতা।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, কটলীপাড়া-বসন্তপুর রোড থেকে আল-এমদাদ ডিগ্রী কলেজের লিংক রোড এবং বনগ্রাম ও বানিগাজী হয়ে কলেজে আসা-যাওয়ার লিংক রোডটি কর্দমাক্ত আর পিচ্ছিল হয়ে যাতায়াত অনুপযোগী হয়ে উঠেছে। কোনো কোনো স্থানে ভাঙ্গনের ফলে বিলীন হয়ে যাচ্ছে রোডটি। স্থানীয়দের উদ্যোগে বালু ভর্তি বস্তা ফেলে চলাচলের উপযোগী এবং বেড়িবাঁধ নির্মাণ করে রাস্তা ঠিকিয়ে রাখার প্রয়াস চলতে দেখা যায়।

হোসাইন সারোয়ার নামের একজন পথচারী জানান, জল-কাদা আর পিচ্ছিল রাস্তা পাড়ি দিতে অপ্রাত্যাশিত পরিস্থিতে পড়তে হচ্ছে অনেককেই। সামান্য বৃষ্টি হলেই অনেক কষ্টে এ রাস্তা দিয়ে যাতায়াত করতে হয়।

স্থানীয়দের দাবী, রাস্তাটি দীর্ঘদিন থেকে ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে উঠেছে। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের উদাসীনতায় হতাশ তারা। রাস্তাটি সংস্কারে দ্রুত উদ্যোগ নেয়ার জন্য তারা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করেন।

নাঈমা আক্তার, সাফিন আহমদ, রুবেল ও মাহিনসহ কলেজের কয়েকজন শিক্ষার্থী জানান, বৃষ্টি হলেই রাস্তাটি ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে উঠে। অনেক কষ্টে কলেজে আসা-যাওয়া করতে হয়। কলেজে আসতে হলে পথিমধ্যে আমাদের অনেক সময় নষ্ট হয়। জল-কাদা আর তীব্র পিচ্ছিল হওয়ায় লাইনে দাঁড়িয়ে ধীরে ধীরে হেটে কলেজে আসতে হয়।

তাছাড়া রাস্তা কর্দমাক্ত আর পিচ্ছিল হওয়ার ফলে কিছু সংখ্যক শিক্ষার্থী কলেজে আসতে পারলেও বেশিরভাগ থাকেন অনুপস্থিত। তাই সরকার ও সংশ্লিষ্ট মহলের কাছে আমাদের দাবী রাস্তাটি দ্রুত পাকাকরণের ব্যবস্থা নেয়া হোক।

আল-এমদাদ ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদ জানান, এখানে ২০০৮ সাল থেকে আল-এমদাদ কলেজের পাঠদান শুরু হলেও দীর্ঘ ১১ বছরেও উন্নয়নের মুখ দেখে নি কলেজ রোডটি।

২০১৪ সালের ১ জানুয়ারী থেকে এখানে ডিগ্রী কলেজ শাখা শুরু হলে বেড়ে যায় শিক্ষার্থীদের আনাগোনা। কিন্তু সুদীর্ঘ সময়ে উন্নয়নের মুখ না দেখা এ রাস্তাটি এখন চলাচল অনুপযোগী হয়ে উঠেছে। অনেক কষ্টে শিক্ষার্থীরা কলেজে আসা-যাওয়া করেন। ফলে কলেজ বিমুখ হয়ে উঠছেন শিক্ষার্থীরা। তাই গুরুত্বপূর্ণ এ রাস্তাটির উন্নয়নে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য তিনি সরকারের সংশ্লিষ্ট মহলের প্রতি আহবান জানান।

বুধবারী বাজার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মস্তাব উদ্দিন কামাল জানান, এ রাস্তাটি দিয়ে যাতায়াত দুর্ভোগ অসহনীয় পর্যায়ে পৌঁছেছে। তবে স্থানীয় সংসদ সদস্য নুরুল ইসলাম নাহিদ এমপি SDIRIIP প্রকল্পের আওতায় এ রাস্তা-সহ আরো কয়েকটি রাস্তার উন্নয়ন প্রকল্প হাতে নিয়েছেন। এ উদ্যোগকে তিনি ধন্যবাদ জানিয়ে তা দ্রুত বাস্তবায়ন হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, পর্যায়ক্রমে আল-এমদাদ ডিগ্রী কলেজের রাস্তা-সহ SDIRIIP প্রকল্পের আওতায় বাদবাকি রাস্তাগুলোর টেণ্ডার হওয়ার সাথেই সাথেই উন্নয়নকাজ শুরু হবে। আশা করা হচ্ছে খুব শীঘ্রই উন্নয়নের মুখ দেখবে সড়কগুলো।

স্থানীয়রা জানান, এ রাস্তাটি উন্নয়নের মুখ দেখলে দীর্ঘদিনের দুর্ভোগ লাগব হবে। জনদুর্ভোগ লাগবকল্পে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে এ রাস্তাটির ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট মহল ও নুরুল ইসলাম নাহিদ এমপির প্রতি তারা অনুরোধ জানান।

আজকের পত্রিকা/নোমান মাহফুজ/গোলাপগঞ্জ