সিফাত বিনতে ওয়াহিদ
সিনিয়র সাব-এডিটর

গুরুতর অসুস্থ অভিনেতা ও নির্মাতা হুমায়ূন সাধু। গত আটদিন যাবত বলতে পারছেন না কথাও। ১০ অক্টোবর বৃহস্পতিবার হুমায়ূন সাধুর খোঁজ নিতে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে ফোন ধরেন তার বড় বোন ফরিদা আক্তার। জানান, মাকে দেখতে বোনের সঙ্গে এ মাসের প্রথমদিকেই চট্টগ্রাম গিয়েছিলেন তিনি, সেখানে যাওয়ার পরই হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন।

কী রকম অসুস্থতা জানতে চাওয়া হলে হুমায়ূন সাধুর বড় বোন জানান, প্রথমে খুব জ্বর ছিল। জ্বর না কমায় তারা চিকিৎসকের শরানাপন্ন হন। চিকিৎসকের পরামর্শ মতে ৫ অক্টোবর হাসপাতালে ভর্তি করা করা। সে সময় তার রক্তে ইনফেকশন ধরা পড়েছিল।। সেখানে যাওয়ার পর থেকেই হুমায়ূন কথা বলাও বন্ধ করে দেন। কোনো কথা জিজ্ঞেস করলে তিনি তাকিয়ে থাকছেন, উত্তর দিতে পারছেন না।

চট্টগ্রামের পার্ক ভিউ হাসপাতালে ভর্তি আছেন সাধু। বর্তমানে তিনি উঠে দাঁড়াতে বা বসতে পারলেও জ্বর থাকছে ১০১-১০২ ডিগ্রীর কাছাকাছি। অস্পষ্ট এক-দুইটা শব্দ বললেও সেগুলো কিছুই বুঝা যাচ্ছে না বলে জানান তার বোন।

চিকিৎসকের দেওয়া বেশ কিছু পরীক্ষা করানো হয়েছে হুমায়ূন সাধুকে। করানো হয়েছে এম আর আইও। ৯ অক্টোবর সন্ধ্যায় রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পরই চিকিৎসকরা রোগ সম্পর্কে নিশ্চিত ধারণা দিতে পারবেন বলে পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। তার বড় বোন সকলের কাছে হুমায়ূন সাধুর জন্য দোয়া চেয়েছেন।

নির্মাতা মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর হাত ধরে মিডিয়ায় পা রাখেন হুমায়ূন সাধু। ফারুকীর পরিচালনায় ‘মেড ইন বাংলাদেশ’ দিয়েই অভিনয়ে তার পথচলা শুরু। ‘ঊনমানুষ’ নাটকে অভিনয় দিয়ে দর্শকদের নজর কেড়ে নেওয়া সাধু এরই মধ্যে পরিচালনা করেছেন বেশ অনেকগুলো নাটক।

অভিনয় দিয়ে দর্শকদের কাছে পরিচিতি পেয়েছেন হুমায়ূন সাধু। নাটক নির্মাণ করেও প্রশংসিত তিনি। ফেব্রুয়ারিতে অমর একুশে বইমেলায় প্রকাশ পেয়েছে তার প্রথম বই ‘ননাই’। অভিনয়, নির্মাণ ও লেখালেখি-তিনটিই সমানতালে চালিয়ে যাচ্ছেন ‘ঊন মানুষ’খ্যাত এই তারকা। এ বছরই নিজের প্রথম চলচ্চিত্র নির্মাণের কথা জানিয়েছেন তিনি। ইতোমধ্যে কাজও শুরু করে দিয়েছিলেন তার স্বপ্নের সেই সিনেমার।

আজকের পত্রিকা/সিফাত