গরমের সময় খাবারের দিকে একটু বিশেষ খেয়াল রাখতে হয়। ছবি: সংগৃহীত

বাইরে বের হলে গরম আবার রুমের ভেতরেও গরম। গরমের যন্ত্রণায় জীবন অতিষ্ঠ। শরীর গরম হয়ে গেলে নানা ধরনের সমস্যা দেখা দিতে পারে। কিন্তু এই গরমকে মোকাবেলার কী কোনো উপায় আছে? গরমের সময় খাবারের দিকে একটু বিশেষ খেয়াল রাখতে হয়। সাধারণ পানি, শরবত বেশি বেশি খেতে হবে। এছাড়াও যেসব খাবার খেতে হবে-

বাঙ্গি

ক্ষুধামন্দা বা মূত্রসল্পতা দূর করে বাঙ্গি। ছবি: সংগৃহীত

শরীর ঠান্ডা রাখার জন্য বাঙ্গি কার্যকর। এতে আছে ভিটামিন ও খনিজ৷ পাকা বাঙ্গির জুস বা বাঙ্গি কেটে লবণ বা চিনি দিয়ে খেলে গরমে আরাম পাওয়া যায়৷ তরকারি হিসেবে কাঁচা বাঙ্গি খাওয়া যায়৷ ক্ষুধামন্দা বা মূত্রসল্পতা দূর করে বাঙ্গি।

করলা

করলায় ক্যালসিয়াম, ভিটামিন সি, ক্যালরি, লৌহ প্রচুর পরিমাণে থাকে। ছবি: সংগৃহীত

হাজারো রোগ বালাইয়ের ওষুধ হিসেবে কাজ করে করলা৷ নিয়মিত করলা খেলে রোগবালাই দূর হয়। করলায় ক্যালসিয়াম, ভিটামিন সি, ক্যালরি, লৌহ প্রচুর পরিমাণে থাকে। গরমে করলা খেলে শরীর ঠান্ডা থাকে।

শসা

পানি পিপাসায় শসা পানির বিকল্প হিসেবে কাজ করে। ছবি: সংগৃহীত

শসা পানির পিপাসা মিটাতে সাহায্য করে। পানি পিপাসায় শসা পানির বিকল্প হিসেবে কাজ করে। শসা খুব সহজেই ক্লান্তি দূর করতে পারে। শসাতে শতকরা ৯০ শতাংশ পানি থাকে। গরমে শরীরের বাহিরে ও ভেতরে প্রচন্ড জ্বালা অনুভব হলে, শসা খেয়ে নিন৷ সূর্যের আলোয় ত্বকে জ্বালা হলে শসা কেটে ত্বকে ঘষুন। যথাসম্ভব ফল পাবেন।

লাউ

গরমে লাউ শরীরের পানির চাহিদা পূরণ করে। ছবি: সংগৃহীত

গরমের খাবার হিসেবে লাউয়ের খুব কদর। কেননা, লাউয়ে ৯৬ শতাংশ পানি থাকে। সেজন্য গরমে লাউ শরীরের পানির চাহিদা পূরণ করে এবং ক্যালরি কম হওয়ায় ওজন বাড়ায় না। এছাড়া ত্বক সতেজ রাখে এবং চুল পড়া কমায়৷ ক্যালরি কম হওয়ায় ডায়াবেটিস, স্থুলতার ভয় থাকে না।

তরমুজ

তরমুজে ৯১শতাংশ পানি থাকে। ছবি: সংগৃহীত

গরমে তরমুজের খাওয়া খুব উপকারী। তরমুজের শরবত বানিয়ে খেতে পারেন বরফ দিয়ে। গরমের ফল তরমুজ, খেলে দেখবেন গরমে শীতল অনুভূতি এনে দেবে৷ গরমের সময় বাজারে, দোকানে তরমুজ থরে থরে সাজানো থাকে। তরমুজে ৯১ শতাংশ পানি থাকে, খনিজ লবণ ও প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন থাকায় তরমুজ গরমে স্বস্তি দেয়৷

বেল

গরমে বেল সহজেই আপনার স্বস্তি দিতে পারে। ছবি: সংগৃহীত

গরমে বেলের শরবত নিমিষেই দূর করে অস্বস্তি, প্রাণ জুড়িয়ে যায়। বেলের অনেক গুণ। এতে আছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ, ভিটামিন সি, ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, পটাশিয়াম। গরমে বেল সহজেই আপনার স্বস্তি দিতে পারে। তাই বেশি বেশি বেল খান, বেলের শরবত বানিয়ে খান।

আনারস

জ্বর, জন্ডিসের জন্য আনারস বেশ উপকারী। ছবি: সংগৃহীত

গরমের সময় ভাইরাস জ্বর, সর্দিকাশি লেগেই থাকে। শরীর সুস্থ রাখতে গরমে বেশি বেশি আনারস খান। আনারসের জুস প্রতিদিন খেতে পারেন৷ জ্বর, জন্ডিসের জন্য আনারস বেশ উপকারী।

ডাব

পানি শুন্যতা দূর করে বেশ ঝরঝরে করে তোলে ডাবের পানি। ছবি: সংগৃহীত

ডাব গরমে পানির তেষ্টা মেটানোর উপকারী। বাজারে পাওয়া এনার্জি ড্রিংকের চেয়ে বেশি উপকারী। পানি শুন্যতা দূর করে বেশ ঝরঝরে করে তোলে ডাবের পানি।

পেঁপে

পেঁপে শুধু শরীরের চাহিদাই মেটায় না বরং রোগ প্রতিরোধে অংশ নেয়। ছবি: সংগৃহীত

পেঁপে শুধু শরীরের চাহিদাই মেটায় না বরং রোগ প্রতিরোধে অংশ নেয়। গরমে হালকা খাবার খান, ঝাল ও গরম খাবার পাকস্থলীতে জ্বালাপোড়া সৃষ্টি করে। তাই হালকা খাবার খান। সবুজ শাকসবজি বেশি বেশি খান, সতেজ এবং সুস্থ থাকুন।

আজকের পত্রিকা/রিয়া