অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। ছবি : সংগৃহীত

৭ শতাংশ সুদে খেলাপি ঋণ পরিশোধের সুযোগ দিচ্ছে সরকার। ২৫ মার্চ সোমবার বিকালে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এসব তথ্য জানান। তবে এই সুবিধা নিতে মূল ঋণের ২ শতাংশ এককালীন পরিশোধ করতে হবে। সুদসহ বাকি অর্থ পরিশোধ করা যাবে সর্বোচ্চ ১২ বছরের মধ্যে।

তিনি আরও জানান, ‘আগামী মে মাসের ১ তারিখ থেকে নতুন এই নিয়ম কার্যকর হবে।’

ব্যাংকের নিয়মিত গ্রাহকদের ১২-১৬ শতাংশ হারে সুদ দিতে হলেও চিহ্নিত ঋণখেলাপিদের দিতে হবে মাত্র ৭ শতাংশ হারে। অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের নেতৃত্বে গঠিত উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন কমিটির প্রস্তাবে এসব সুপারিশ তুলে ধরা হয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের মতামত নিয়ে কমিটি তাদের প্রতিবেদনে ঋণ পুনঃতফসিলের বিভিন্ন সুপারিশ করেছে।

এক শতাংশ ডাউন পেমেন্ট দিয়েই পুনঃতফসিল করা যাবে। পুনঃতফসিল হওয়া ঋণ পরিশোধে তারা সময় পাবেন টানা ১৫ বছর। ফলে প্রথম ২ বছর কোনও কিস্তিই দিতে হবে না। খেলাপিরা ব্যাংকের টাকা ফেরত দেওয়া শুরু করলে পাবেন সুদের বিশেষ সুবিধা। নিয়মিত গ্রাহকদের চেয়েও তাদের কম সুদ দিতে হবে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৫ থেকে ২০১৮ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত মোট ৯৭ হাজার কোটি টাকার ঋণ পুনঃতফসিল হয়েছে।

প্রসঙ্গত, এর আগে ২০১৫ সালে বিশেষ বিবেচনায় ডাউন পেমেন্ট ও মেয়াদের শর্ত শিথিল করে পাঁচশ কোটি টাকার ওপরে ঋণ নেওয়া ১১টি ব্যবসায়ী গ্রুপকে দেওয়া হয় বিশেষ সুবিধা। ওই সময় তারা ১৫ হাজার ২১৮ কোটি টাকার ঋণ পুনর্গঠন করে। পরবর্তী সময়ে অধিকাংশ প্রতিষ্ঠান পুনর্গঠিত ঋণের টাকা ফেরত না দেওয়ায় সুদে-আসলে ব্যাংকগুলোর পাওনার পরিমাণ ১৬ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়ে যায়।

আজকের পত্রিকা/আ.স্ব/জেবি