জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে জি কে শামীম ও খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়ার বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুদক। ২১ অক্টোবর সোমবার দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

১৩ অক্টোবর বহিস্কৃত যুবলীগ নেতা এস এম গোলাম কিবরিয়া শামীম ওরফে জি কে শামীম এবং যুবলীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠান আদালত।

এর আগে ৫ দিনের রিমান্ড শেষে জি কে শামীমকে আদালতে হাজির করে মামলার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডির সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আবু সাঈদ। অপরদিকে, মানিলন্ডারিং এবং মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের মামলায় ৭ দিনের রিমান্ড শেষে খালেদ ভূইয়াকে আদালতে হাজির করে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা।

উল্লেখ্য, গত ২০ সেপ্টেম্বর দুপুরে নিকেতনের নিজ বাসা থেকে শামীমকে আটক করা হয়। এসময় তার কাছ থেকে প্রায় ২০০ কোটি টাকার এফডিআর চেকসহ বিপুল পরিমাণ দেশি-বিদেশি টাকা জব্দ করা হয়েছে। শামীমের কাছে একটি অস্ত্রও পাওয়া যায়।

অন্যদিকে, ১৮ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় আটক করা হয় খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়াকে। তার বাসা থেকে একটি অবৈধ অস্ত্র, লাইসেন্সের শর্ত ভঙ্গ করা আরও দুইটি অস্ত্র, কয়েক রাউন্ড গুলি ও দুই প্যাকেটে ৫৮২ পিস ইয়াবা জব্দ করে র‌্যাব। এছাড়া তার বাসার ওয়াল শোকেস থেকে ১০ লাখ ৩৪ হাজার টাকা ও ৪ থেকে ৫ লাখ টাকা সমমূল্যের মার্কিন ডলার জব্দ করা হয়।

আজকের পত্রিকা/কেএফ/সিফাত