সংসদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: সংগৃহীত

জাতীয় সংসদে ১১ সেপ্টেম্বর বুধবারের অধিবেশনে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) সাংসদ রুমিন ফারহানার এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘জনগণ আমাকে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব দিয়েছেন তাদের কল্যাণ নিশ্চিত করার জন্য। আরাম-আয়েসের জন্য প্রধানমন্ত্রিত্ব গ্রহণ করিনি। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর কন্যা হিসেবে জনগণের প্রতি আমার দায়বদ্ধতার একটি আলাদা জায়গা রয়েছে। সেটাই আমি প্রতিপালন করার চেষ্টা করি। সেই জন্যই দিনরাত পরিশ্রম করি। তা না করে সংসদ সদস্যের (রুমিন ফারহানা) নেত্রী খালেদা জিয়ার মতো দুপুর ১২টা পর্যন্ত ঘুমিয়ে কাটালেই কি প্রশ্নকারী খুশি হতেন?’

বুধবার জাতীয় সংসদে রুমিন তার প্রশ্নে দেশে ‘বর্তমানে মানুষ হত্যা হতে মশা মারা পর্যন্ত সকল ক্ষেত্রেই প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার প্রয়োজন হয়’ দাবি করে এটাকে রাষ্ট্রের অন্যান্য প্রতিষ্ঠান ভেঙে পড়া, অকার্যকর হওয়ার ইঙ্গিত বহন করে বলে অভিযোগ করেন। প্রাতিষ্ঠানিক সফলতা একটি কার্যকর রাষ্ট্রের পূর্বশর্ত উল্লেখ করে রুমিন প্রশ্ন করেন, ‘এই অকার্যকর প্রতিষ্ঠানগুলো কি রাষ্ট্র পরিচালনায় সরকারের সার্বিক ব্যর্থতার চিত্র বহন করে না?’

জবাবে প্রধানমন্ত্রী বিএনপির এই সংসদ সদস্যদের প্রশ্নকে ‘অনাকাঙ্ক্ষিত, অসংসদীয় ও অবান্তর’ হিসেবে আখ্যায়িত করেন। তিনি মন্তব্য করেন, ‘ওই সংসদ সদস্য মানুষ হত্যা’ আর মশা মারাকে একই সমতলে নিয়ে এসেছেন। প্রধানমন্ত্রীর কাজ মন্ত্রীদের কাজের তদারক করা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘কোনো প্রতিষ্ঠানকে অকার্যকর করার জন্য নয়, সব প্রতিষ্ঠানকে আরও সক্রিয় রাখার জন্য সর্বদা সচেষ্ট রাখি।’

এছাড়া বিএনপি নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট সরকারের প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া এবং তার ছেলে তারেক রহমানের কর্মকাণ্ডে ‘অকার্যকর রাষ্ট্রের উদাহরণ’ তৈরি হয়েছিল বলে মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আজকের পত্রিকা/সিফাত