দিনাজপুর জেলার খানসামা উপজেলায় ১৫ই আগষ্ট এর শোক দিবসে সন্ত্রাসী হামলা ও ব্যানার ছিঁড়ে বঙ্গবন্ধুর সম্পর্কে আজে বাজে মন্তব্যের অভিযোগ উঠেছে। শোক দিবসের সন্ত্রাসী হামলা চালানোর পরেও এখনো কেউ গ্রেফতার হয়নি।

জাতীর জনক বঙ্গবন্ধুর শাহাদৎ বার্ষিকী উপলক্ষ্যে গত ১৫ আগষ্ট শোক দিবস অনুষ্ঠানটিতে সন্ত্রাসী হামলা ও তান্ডব নীলা চালিয়ে ও ব্যানার ছিঁড়ে অনুষ্ঠান পন্ড করেছে ।

ঘটনাটি ঘটেছে ভাবকি ইউনিয়নের মন্ডলের বাজারের শেখ রাসেল স্মৃতি পাঠাগারে। এ সময় আঃ লীগের আক্তার হোসেন বেদম মারধর করার ঘটনায় অনুষ্ঠানটি পন্ড হয়।

শোক দিবসে ৩০ থেকে ৪০ জন লোক মোবাইল চুরির অভিযোগ করে। ভাবকী ওয়ার্ডের নেতা আক্তার হোসেন শোক দিবসের অনুষ্ঠানটি যাতে নষ্ট না হয় তার জন্যে সবাইকে বুঝানোর চেষ্টা করলে সন্ত্রাসীরা তার উপর আক্রমণ চালায়। সবুজ, আনিছুর, একরামুল হক, মোহাম্ম্দ আলী, শামসুল হক, পেকলু, গণি, আনারুল, খয়রাত, মাসুদ, সাজ্জাদ, আরিফ, হয়রত, আইনুল, বাবু সহ ৩০ থেকে ৪০ জন বঙ্গবন্ধুর ব্যানার ছিড়ে ফেলে বলে অভিযোগ করা হয়।

এ মারপিটের সংবাদ পেয়ে খানসামা থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে ঘটনা নিয়ন্ত্রণ করে।

উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খানসামা উপজেলা আঃলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোস্তফা আহম্মেদ শাহ্, সফিকুল ইসলাম, খামার পাড়া ইউপি চেয়ারম্যান সাজেদুর হক সাজু ও ধীমান দাস।

এলাকার স্থানীয় নেতাদের আশংকা এখনো সন্ত্রাসীদের কাউকে গ্রেফতার না করায় এলাকায় বিরুপ প্রতিক্রিয়া সাধারন মানুষের মাঝে দেখা যাচ্ছে।

তারিকুল ইসলাম চৌধুরী/খানসামা