সোনা হয় মূলত ২৪ ক্যারেটের, তবে ২৪ ক্যারেটের সোনা দিয়ে গয়না তৈরি হয় না। ছবি : সংগৃহীত

একটি হলুদ বর্ণের ধাতু সোনা। বহু প্রাচীনকাল থেকেই মানুষ এই ধাতুর সাথে পরিচিত ছিল। এ ধাতুর মূল বৈশিষ্ট্য অপরিবর্তনীয়। এছাড়া চকচকে বর্ণ, বিনিময়ের সহজ মাধ্যম, কাঠামোর স্থায়ীত্বের কারণে এটি অতি মূল্যবান ধাতু হিসেবে চিহ্নিত হয়ে আসছে সেই প্রাচীনকাল থেকেই। প্রাচীনকাল থেকে বিভিন্ন ধরণের অলাঙ্কার তৈরি করা হয় সোনা থেকে। জার্মানির বিখ্যাত সমাজতত্ত্ববিদ কার্ল মার্ক্স সোনাকে মানুষের আবিস্কৃত প্রথম ধাতু হিসাবে চিহ্নিত করেন। সোনার আলোচনা ছেড়ে এবার জানার চেষ্টা করি সোনা চেনার সহজ উপায় কি হতে পারে অথবা খাঁটি সোনা কিভাবে চিনবেন?

২৪ ক্যারেটের সোনা

সোনা হয় মূলত ২৪ ক্যারেটের। তবে ২৪ ক্যারেটের সোনা দিয়ে গয়না তৈরি হয় না। কারণ সেটা এত নরম হয় যে, গয়না তৈরি করা সম্ভব হয় না। গয়না তৈরির জন্য মূলত ২২ ক্যারেটের সোনা ব্যবহার করা হয়। যার মধ্যে ৯১.৬৬ শতাংশ সোনা থাকে।

সোনায় লোহা মেশানো

সোনার সাথে লোহা কথাটা শুনলেই কেমন যেন অস্বাভাবিক মনে হয়। আর এই অস্বাভাবিক কাজই সোনার ব্যবসায়ী করে থাকে। সোনায় যদি লোহা মেশানো থাকে, তা হলে চুম্বক ধরলেই সেটা টেনে নেবে। সোনায় লোহা মোশানো আছে কি না, তা চুম্বক ব্যবহার করে অবশ্যই পরখ করে নিন।

রাসায়নিক ও এসিড দ্বারা খাঁটি সোনা কিভাবে চিনবেন

সোনা পরীক্ষা করার জন্য বাজারে কিছু রাসায়নিক এবং এসিড আছে যেগুলো ব্যবহার করে সোনার গুণগত মান যাচাই করা সম্ভব। ওই রাসায়নিক বা এসিড খাঁটি সোনার সংস্পর্শে এলে কোনো রকম বিক্রিয়া হয় না।

সাদা চিনেমাটির প্লেট খাঁটি সোনা কিভাবে চিনবেন

সোনা যাচাইয়ের জন্য এটি একটি ভিন্ন টেকনিক। সাদা চিনেমাটির একটা প্লেটের সাহায্যে আপনি সোনা যাচাই করতে পারেন। সোনার গয়না চিনেমাটির প্লেটে ঘষে দেখুন। যদি থালার ওপর কালো দাগ পড়ে তা হলে বুঝতে হবে সোনা নকল। আর যদি হালকা সোনালি রং পড়ে তা হলে বুঝতে হবে সেটা আসল।

দুই গ্লাস পানি

সোনার দোকানে আপনি তো চিনামাটির প্লেট বা রাসায়নিক এসিড নিয়ে যাবেন না তাহলে কি করবেন। দোকানে ঢুকে দোকানদারকে পানি খাওয়াতে বলুন। তবে এক গ্লাস নয় সাথের বান্ধবী বা স্ত্রীর জন্যও এক গ্লাস দিতে বলুন। আর যদি কাউকে অন্ধকারে উপহার দিতে হয় তাহলে কি করবেন দোকানদারকে বলুন দুই গ্লাস পানি খাওয়াতে। একটা গভীর পাত্রের মধ্যে দুই গ্লাস পানি নিন। তাতে কিনে আনা সোনার গয়না ফেলে দেখুন সেটা ভাসছে কি না। যদি ভাসে তা হলে বুঝতে হবে সেটা নকল।

কামড় দিয়ে খাঁটি সোনা কিভাবে চিনবেন

এ পরীক্ষাটি চালানর আগে নিজে পরীক্ষা করুন না হলে আবার দাগ ফেলে দেওয়ার জন্য দোকানদার জরিমানাও করতে পারে। হালকা কামড় দিয়ে ধরে রাখুন সোনা। যদি আসল হয় তা হলে সোনার ওপর কামড়ানোর হালকা দাগ পড়বে।

ঘামের স্পর্শে আনা

ঘামের সংস্পর্শে এলেও আসল সোনাতে কখনো ঘামের গন্ধ ধরে না। যদি ঘামের গন্ধ ধরে তা হলে বুঝতে হবে এটি খাঁটি সোনা নয়।

ভিনেগার দ্বারা খাঁটি সোনা কিভাবে চিনবেন

ভিনেগার দিয়েও সোনা পরীক্ষা করা সম্ভব। একটি গ্লাসে কিছু পরিমাণ হোয়াইট ভিনেগার নিয়ে তারমধ্যে গহনাটি ১৫ মিনিট ডুবিয়ে রাখুন। তারপর গ্লাস থেকে গহনাটি বের করে নিন। খাটি স্বর্ণ হলে সেটা আগের মতোই চমকাবে আর নকল হলে উজ্জ্বল্য হারাবে।

BIS চিহ্ন দেখে খাঁটি সোনা কিভাবে চিনবেন

BIS চিহ্ন দেখে সোনা কিনুন– সাধারণত, সোনা কেনার আগে হলমার্ক দেখেই মানুষ কেনেন। এটাই নিয়ম খাঁটি সোনা চেনার ক্ষেত্রে। কিন্তু এছাড়াও BIS চিহ্ন দেখে সোনা কিনুন। তাতে আপনি নিশ্চিত থাকবেন যে, আপনার সোনা সত্যিই খাঁটি।

ফ্লুরোসেন্স মেশিনে এক্স-রে করা

ফ্লুরোসেন্স মেশিনে এক্স রে করিয়ে নিন। যদিও এই পদ্ধতিতে সোনা যাচাই করে নেওয়াটা একটু কঠিন। কারণ সব জায়গাতে সচরাচর এমন সূযোগ আপনি নাও পেতে পারেন।

আজকের পত্রিকা/কেএইচআর/