ক্যান্সার আক্রান্ত মায়ের পাশে অসুস্থ কাওছার।

মা কুলসুম বেগম (৩৫) ঘাতক ব্যাধি ক্যান্সার আক্রান্ত মৃত্যুপথ-যাত্রী বিছানায় শুয়ে মৃত্যু প্রহর গুণছে। একমাত্র সন্তান অসুস্থ ছোট্ট কাউছার মায়ের পায়ের কাছে বসে এক পায়ের উপর ভর করে মাকে সেবা করছে আর পাশে বসে মাথায় হাত বুলিয়ে দিচ্ছে তার ছোট্ট বোন শিশু জুই খাতুন।

বিষয়টা সিনেমার গল্পের মতো হলেও পদ্মা’য় সর্বস্ব হারানো পদ্মাপাড়ের এক হতদরিদ্র পরিবারের বাস্তব ঘটনা।

১৮ জুন মঙ্গলবার ভর দুপুরে রাজবাড়ী সদর বরাট ইউনিয়নের ভবদিয়া গ্রামের দিন-মুজুর জালাল ফকিরের বাড়িতে দেখা গেল এমন হৃদয়-বিদারক ঘটনা।

কুলসুম বেগম বলে, বছর দেড়েক আগে সর্বনাশা পদ্মা নদীতে আমার ঘর-বাড়ী ভাসিয়ে নিয়েছে। এখানে কোন মত মাথা গুজার ঠাই পেয়েছিলাম এখন উপরওলার চোখ পড়েছে আমার দিকে। আমি চলে গেলে আমার ছোট ছোট ৩টা বাচ্চা কে দেখবে।

স্বামী জালাল ফকির বলেন, গত মাসে ঢাকার জাতীয় ক্যান্সার হাসপাতাল থেকে একটা ক্যান্সার নিরাময় ওষুধ কিমু দেয়া হয়েছে, যার দাম ২০ হাজার টাকা এবং বলেছেন উপযুক্ত চিকিৎসা সেবায় সুস্থ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এই মাসে আরো একটি কিমু দিতে হবে কিন্তু এতো টাকা কোথায় পাব।

যদি কোন সহৃদয়বান ব্যাক্তি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিতো তাহলে উপকৃত হতাম।

কাউছার বলে, পা কেটে আমার ৮টা সেলাই লাগছে কিন্তু তাতে আমার কোন কষ্ট নেই আমি শুধু আমার মা’কে বাঁচানোর জন্যে আপনাদের কাছে সাহায্যে ও দোয়া চাচ্ছি।

রাজিব সরদার/রাজবাড়ী