মরদেহ। প্রতীকী ছবি

গাজীপুরের কোনাবাড়ী এলাকা থেকে আকাশী রানী (২০) নামের এক নারী শ্রমিকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

শুক্রবার (২০ সেপ্টেম্বর) রাতে তার মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজ উদ্দিন আহমেদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়।

আকাশী রানী টাংগাইল জেলার বাসাইল থানার শুন্ন্যাই এলাকার হরে কৃষ্ণ রাজবংশীর মেয়ে।

আকাশী রানী স্বামী ফালু রাজবংশীর সাথে কোনাবাড়ী এলাকার দেওয়ালিয়া বাড়ি মেঘা মার্কেটের সামনে আবুল বাসারের বাড়ির ভাড়াটিয়া।

আকাশী রানী ১২ সেপ্টেম্বর নাইট ডিউটি করে বাসায় ঘুমিয়ে পরেন, এই সুযোগে তার স্বামীর বন্ধু রাজন মিয়া (২০)

সকাল ৯টার দিকে তাকে ঘুমের মধ্যে জরিয়ে ধরে এতে তার ঘুম ভেঙে যায় এবং সে চিল্লাপাল্লা করে। তার চিল্লাপাল্লা শুনে আশেপাশের লোকজন ছুটে আসে এবং রাজন পালিয়ে যায়।

এঘটনা তার স্বামী জানতে পারে। পরে স্বামী স্ত্রীর মধ্যে বিষয়টি নিয়ে ঝগড়া বিবাদ হয়।

পুনরায় ওই বিষয়টি নিয়ে ২০সেপ্টেম্বর শুক্রবার আনুমানিক দুপুর ২টার দিকে স্বামী স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হয় এবং স্ত্রীকে মারধর করে।

ঝগড়ার এক পর্যায়ে স্বামী বাসা থেকে রাগ করে বের হয়ে যায় তার পিছনে পিছনে আকাশী রানী ও ছুটে যান। পরে তার স্বামী রানীর হাতে বিশ টাকা দিয়ে চলে যান এবং আকাশী রানী বাসায় ফেরত আসেন।

শুক্রবার রাত আনুমানিক আটার দিকে পাশের রুমের ভাড়াটিয়া সন্ধা রানী আকাশী রানীকে ডাকাডাকি করে কোন সাড়াশব্দ না পেয়ে আকাশী রানীর মাকে খবর দেন। খবর পেয়ে তার মা চলে আসেন এবং আশেপাশের ভাড়াটিয়াদের নিয়ে রুমের দরজা ভেঙে ভিতরে ঢুকেন।

ভিতরে ঢুকে আকাশী রানীকে ফ্যানের সঙ্গে গলায় ওড়না পেচিয়ে ঝুলতে দেখেন।

পরে পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ লাশটি উদ্ধার করেন।

কোনাবাড়ী থানার এস আই সাইদুর রহমান জানান, থানায় আকাশী রানীর মা (দুরবর্বাতী রানী) বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন।

এই মামলায় নিহতর স্বামী ফালু রাজবংশী এবং তার বন্ধ রাজনকে গ্রেপ্তার করে আদালতে প্রেরণ করে।

-শহিদুল ইসলাম