মরদেহ। প্রতীকী ছবি

কোনাবাড়ীতে পৃথক দুই ঘটনায় দুটি লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার রাতে কোনাবাড়ী পারিজাত আমতলা এলাকায় কারখানার মালামাল ট্রাকে লোড-আনলোড করার সময় পা পিছলে পড়ে মাথায় আঘাত লেগে মো.চন্দন ফকির (৪৫) নামে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়।

অপরদিকে শুক্রবার সকাল নয়টার দিকে জরুন পেয়ারা বাগান এলাকা থেকে হোসনে আরা (২৪) নামের এক নারী পোশাক কারখানায় শ্রমিকের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

নিহত চন্দন ফকিরের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কোনাবাড়ী থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবু সাইদ জানান, খবর পেয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

নিহত চন্দন ফকির নেত্রকোনা জেলার বারহাট্টা থানার শেখের পাড়া গ্রামের মৃত আলাউদ্দীনের ছেলে এবং কোনাবাড়ী হরিনাচলা এলাকার দুলালের বাড়ির ভাড়াটিয়া।

অপরদিকে কোনাবাড়ী থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মাইকেল বণিক জানান, হোসনে আরা দুই সন্তানের জননী, সে স্বামী-সন্তান নিয়ে জরুন পেয়ারা বাগান খন্দকার বাড়ি ভাড়া থেকে স্থানীয় একটি পোশাক কারখানায় চাকরি করেন।তবে কি কারণে সে আত্মহত্যা করেছে সে বিষয়ে কিছু জানা যায় নি। তিনি আরও জানান তবে প্ররাথমি ধারণা সে মানসিক দুশ্চিন্তার কারণে আত্মহত্যা করেছে।

লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহম্মেদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। নিহত হোসনে আরা পাবনা জেলার আতাইকুলা থানার ইসলামপুর গ্রামের ওসমান প্রামানিক এর মেয়ে এবং আসাদুলের স্ত্রী।

এ বিষয় পৃথক দুটি কোনাবাড়ী থানায় অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।

ময়নাতদন্ত শেষে লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

-শহীদুল ইসলাম