গ্রামবাসীর বিক্ষোভ। ছবি : সংগৃহীত

কৃষককে হত্যার অভিযোগে মোহাম্মদ আলী নামে এক এসআইকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তিনি জামালপুর সদর থানায় কর্মরত। ১১ ফেব্রুয়ারি সোমবার তার কর্মস্থল থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গত ৯ ফেব্রুয়ারি শনিবার দুই দিনের ছুটিতে এসে এসআই মোহাম্মদ আলী এ হত্যা ঘটিয়েছেন বলে স্থানীয় লোকজন জানান।

ময়মনসিংহের পুলিশ সুপার শাহ আবিদ হোসেন বলেন, পূর্ববিরোধের জের ধরেই এই হত্যা সংঘটিত হয়েছে। মামলা ও পুলিশের প্রাথমিক তদন্তে ঘটনায় এসআই মোহাম্মদ আলীর সম্পৃক্ততা পাওয়া গেছে। বিষয়টি পুলিশের ঊর্ধ্বতন র্কর্তৃপক্ষকে অবহিত করার পরই তাদের অনুমতিক্রমে এসআই মোহাম্মদ আলীকে গ্রেফতার করা হয়।

তিনি আরও বলেন, ইতোমধ্যে এসআই মোহাম্মদ আলীর সৎ মা ফিরুজা খাতুনকেও গ্রেফতার করেছে পুলিশ। অপর আসামিদের দ্রুত গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

এ ঘটনায় ১১ ফেব্রুয়ারি সোমবার দুপুরে নিহত সেলিমের নিজ গ্রাম আন্ধারিয়াপাড়ায় জানাজা শেষে শত শত মানুষ বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে উপজেলা সদরে প্রবেশ করেন। প্রথমে থানায় প্রবেশ করে বিক্ষোভ মিছিল শুরু করে তারা। পরে পুলিশ এসে বিক্ষোভকারীদের থানা থেকে বের করে দিয়ে থানার প্রধান ফটক বন্ধ করে দেয়। বিক্ষোভকারীরা সেখান থেকে সরে গিয়ে উপজেলা পরিষদ ঘেরাও করে সেখানেও বিচারের দাবিতে বিক্ষোভ করে। পরে তারা উপজেলা পরিষদের সামনে ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধন করে।

এ ঘটনায় ১০ ফেব্রুয়ারি রাতেই নিহতের স্ত্রী ফাতেমা খাতুন বাদী হয়ে এসআই মোহাম্মদ আলীকে প্রধান আসামি করে আরও ৫ নাম উল্লেখ করে ফুলাবাড়িয়া থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলায় অন্যান্য আসামিরা হলেন মোহাম্মদ আলীর ছেলে রিয়াদ আহম্মেদ (২০), ভাই মোহাব্বত আলী (২১), ভাগনে ফারহান আলী (২৩) ও সৎ মা ফিরুজা খাতুন (৪০)।