বাজারে চিনিযুক্ত পণ্যের ছড়াছড়ি থাকায় বাচ্চাদের সামলানো মুশকিল হয়ে যাচ্ছে। ছবি: সংগৃহীত

আইসক্রীম, কুকি, এবং চকোলেটের মতো চিনিযুক্ত পণ্যগুলি বেশি খাওয়ার জন্য আমাদের বাচ্চাদের দোষারোপ করি। বাজারে এসব চিনিযুক্ত পণ্যের ছড়াছড়ি থাকায় বাচ্চাদের সামলানো মুশকিল হয়ে যাচ্ছে।

অতিরিক্ত চিনি স্বাস্থ্যের নানা সমস্যা ডেকে আনতে পারে। শিশুদের কী পরিমাণ চিনি খাওয়া উচিত? এই প্রশ্নটি বেশ কয়েকবার আপনার মনে এসেছে। নিচে আপনি উত্তর খুঁজে পাবেন-

শিশুদের বয়সের উপর নির্ভর করে চিনি খাওয়ার পরিমান। ছবি: সংগৃহীত

পরিমাণ

পরিমিত চিনি খাওয়ায় আপনার সন্তানের স্বাস্থ্য প্রভাবিত করে না। কিন্তু অত্যধিক পরিমানে চিনি খাওয়া স্বাস্থ্যের ঝুঁকি ডেকে আনতে পারে। চিনিতে প্রচুর পরিমানে ক্যালোরি থাকে এবং এটি প্রচুর পরিমাণে খেলে ওজন বৃদ্ধি পায়, টাইপ ২ ডায়াবেটিস হওয়ার আশঙ্কা থাকে এবং হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ায়। এটি দাঁত ক্ষয়ের জন্যও দায়ী, যা আজকাল বাচ্চাদের ক্ষেত্রে খুবই সাধারণ।

পাবলিক হেলথ ইংল্যান্ড (পিএইচই) অনুসারে, শিশুদের বয়সের উপর নির্ভর করে চিনি খাওয়ার পরিমান।

৪-৬ বছর: প্রতিদিন ১৯ গ্রাম বা ৫ চা চামচ

৭-১০ বছর: প্রতিদিন ২৪ গ্রাম বা ৬ চা চামচ

১১ বছর এবং তার উপরে: প্রতিদিন ৩০ গ্রাম বা ৭ চা চামচ

কোক জাতীয় পানীয়র বদলে ফলের জুস খাওয়াতে পারেন। ছবি: সংগৃহীত

কি করা উচিত

আপনার সন্তানকে চিনি খাওয়া থেকে দূরে রাখা এতো সহজ ব্যাপার না। কিন্তু কিছু সহজ পদ্ধতির মাধ্যমে চিনি খাওয়ার পরিমান কমানো সম্ভব। যেসব খাবারে বেশি চিনি আছে, সেটার বদলে কম চিনিযুক্ত খাবার দিতে পারেন। যেমন-

  • কোক জাতীয় পানীয়র বদলে ফলের জুস খাওয়াতে পারেন।
  • একটি পণ্য কেনার আগে, তার পুষ্টি স্তর চেক করুন। যে খাদ্যে চিনির পরিমান বেশি সে খাদ্য এড়িয়ে চলুন।
  • সিরিয়াল, কর্ণফ্লেক্স বাদ দিয়ে সকালের নাস্তায় টক দই, টোস্ট দিতে পারেন।

আজকের পত্রিকা/রিয়া