দৈনিক কালের কণ্ঠের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক হলেন পত্রিকাটি নির্বাহী সম্পাদকের দায়িত্বে থাকা মোস্তফা কামাল। গত আট বছর ধরে তিনি এ পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন।

২০০৯ সালের মে মাসে মোস্তফা কামাল কালেরকণ্ঠের সিনিয়র সহকারী সম্পাদক হিসেবে যোগ দেন। সে সময় পুরো টিম গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন তিনি। ২০১০ সালের জানুয়ারি মাসেই উপ-সম্পাদক হিসেবে নিয়োগ লাভ করেন। কালের কণ্ঠে যোগদানের আগে তিনি প্রথম আলোতে বিশেষ প্রতিনিধি হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

১৯৯৮ সালে প্রথম আলোর জন্মলগ্ন থেকেই মোস্তফা কামাল কূটনৈতিক প্রতিবেদক হিসেবে কাজ শুরু করেন। ২০০৯ সালের মে মাস পর্যন্ত তিনি কূটনৈতিক বিটে দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি চিফ রিপোর্টার ও বিশেষ প্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

মোস্তফা কামাল ১৯৮৪ সালে লেখালেখি শুরু করেন। ১৯৮৫ সালে বরিশাল থেকে প্রকাশিত সাপ্তাহিক বিপ্লবী বাংলাদেশ পত্রিকার মাধ্যমে তাঁর সাংবাদিকতায় হাতেখড়ি। পরে তিনি দৈনিক প্রবাসী, সাপ্তাহিক বিচিত্রা, আনন্দ বিচিত্রা, সাপ্তাহিক ঢাকা, পূর্বাভাস ও রোববার পত্রিকায় লেখালেখি করেন। পেশাগত সাংবাদিক হিসেবে কাজ শুরু করেন ১৯৯১ সালে। ১৯৯৪ সালে সংবাদের যোগ দেন এবং কূটনৈতিক প্রতিবেদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

সাহিত্যিক হিসেবেও মোস্তফা কামাল প্রতিষ্ঠিত। তাঁর প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা ১০৫টি। তাঁর সাড়া জাগানো উপন্যাস, ‘অগ্নিকন্যা’, ‘অগ্নিপুরুষ’, ‘অগ্নিমানুষ’, ‘জননী’, ‘জনক জননীর গল্প’, ‘পারমিতাকে শুধু বাঁচাতে চেয়েছি’, ‘জিনাত সুন্দরী ও মন্ত্রীকাহিনী’, ‘হ্যালো কর্নেল’ প্রভৃতি। এ পর্যন্ত প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা ১০৫টি। কলকাতা থেকে সাহিত্যম প্রকাশ করেছে দুটি বই। গতবছর ভারতের নোশন প্রেস থেকে বেরিয়েছে তার তিনটি উপন্যাসের ইংরেজি সংকলন ‘থ্রি নভেলস্’। এ বছরের জানুয়ারিতে লন্ডনের অলিম্পিয়া পাবলিশার্স থেকে প্রকাশিত হয় ‘দ্য মাদার।’

আজকের পত্রিকা/সিফাত