পরাজিত প্রার্থীর নেতা কর্মী ও সমর্থকদের দোকানে তালা ও বাড়ি ঘরে হামলা ভাংচুরের ঘটনা ঘটে

রাজবাড়ী জেলার কালুখালী উপজেলা পরিষদ নির্বাচন পরবর্তী সময়ে পরাজিত প্রার্থীর নেতা কর্মী ও সমর্থকদের দোকানে তালা ও বাড়ি ঘরে হামলা ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে।

গত মঙ্গলবার ১৮ জুন কালুখালী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ফলাফল ঘোষনার পর মদাপুর ইউনিয়নের মদাপুর বাজারের বেশ কয়েটি দোকানে তালা ও চরমদাপুর ও বৃগোপালপুর গ্রামে একাধিক বাড়িঘর ভাংচুর করে দূবৃত্তরা।

পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

বুধবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় মদাপুর বাজারের ব্যাবসায়ীরা আতংকিত হওয়ায় বাজারে আর গ্রামবাসীর নিরাপত্তায় মদাপুর ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

মদাপুর বাজার বণিক সমিতির সহ সভাপতি ও ইশিতা বস্ত্র বিতানের প্রোপাইটার ইশরাত হোসেন অভিযোগ করে বলেন,সকালে বাজারের ওহাবের মুদি দোকান, রফিকের দোকান, শাহিনের খুচরা যন্ত্রাংশের দোকান ও মেহেরে পার্টস এর দোকানে কে বা কাহারা তালা ঝুলিয়ে দিয়েছে। পরে আমরা ব্যাবসায়ীরা হাতুরি দিয়ে তালা ভেঙ্গে দোকান খুলি।

চরমদাপুর গ্রামের বাসিন্দা মোঃ ওসমান জানায়,কালুখালী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মোটর সাইকেল প্রতীকের নুরে আলম সিদ্দিকী হকের পক্ষে প্রচারণা করায় মঙ্গলবার রাতে সন্ত্রাসীরা আমার বাড়ি ঘর ভাংচুর করে।

বৃগোপালপুর গ্রামের ৫নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মোঃ রেজাউল বলেন,নির্বাচনে মোটর সাইকেল প্রার্থীর পোস্টার লাগানোর কাজ করায় মঙ্গলবার রাতে আমার টিনের ঘরের বেড়া সন্ত্রাসীরা কুপিয়ে ভাংচুর করে এবং পরিবারের সদস্যদের প্রাণ নাশের হুমকি দেয়।

বৃগোপালপুর গ্রামের ৫নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা কৃষক মোঃ কালাম বলেন,মঙ্গলবার রাতে সন্ত্রাসীরা লাঠি শোঠা ও অস্ত্র নিয়ে আমার বাড়িতে হামলা করে।এসময় বাড়ির সদস্যরা ভয়ে কাপতে থাকে।সন্ত্রাসীরা ঘরের বেড়ায় কুপিয়ে হুমকি দিয়ে চলে যায়।

আরেক ভূক্তভোগী কৃষক শরিফুল ইসলাম অভিযোগ করে বলেন,মঙ্গলবার রাতে মদাপুর ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রামে প্রায় ২০টি বাড়িতে সন্ত্রাসীরা হামলা চালায়।

বুধবার ১৯ জুন বিকেলে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী নুরে আলম সিদ্দিকী হক ক্ষতিগ্রস্থ সমর্থকদের বাড়িতে যান।পরিবারের সদস্যদের কে সাত্বনা দেন ও নিরাপদে থাকার পরামর্শ দেন।

মদাপুর ইউনিয়নে মোতায়েন থাকা এস আই এবি মোঃ নজরুল ইসলাম জানান,মদাপুর ইউনিয়নে পুলিশ সদস্যরা জনগনের নিরাপত্তায় মোতায়েন রয়েছে।বাজার ব্যাবসায়ী ও সাধারন মানুষদের কে নিরাপত্তা দিয়েছি।বাজারের ব্যাবসায়ীরা সাচ্ছন্দে ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান খোলা রেখেছে।পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটানিং কর্মকর্তা মোঃ হাবিুবুর রহমান জানান,কোন অভিযোগ আসেনি।

উল্লেখ্য,গত ১৮ জুন রাজবাড়ী জেলার কালুখালী উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ।নির্বাচনে সতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী আ‌লিউজ্জামান চৌধুরী টি‌টো আনারস প্রতিকে ৩৭ হাজার ২০ ভোট পে‌য়ে বিজয়ী হ‌য়ে‌ছেন।তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দী নুরে আলম সিদ্দিকি হক মোটর সাই‌কেল প্রতিকে পেয়েছেন ২২ হাজার ৪৩৮ ভোট।আরেক প্রার্থী কাজী সাইফুল ইসলাম নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ৬হাজার ৯শত ৩৩ ভোট।

রাজিব সরদার/রাজবাড়ী