বিজিএমইএ অফিসে বাংলাদেশ ও ভারতে দায়িত্বপ্রাপ্ত দিল্লিস্থ উজবেকিস্তানের রাষ্ট্রদূত বিজিএমইএ নেতৃবৃন্দের সাথে এক সৌজন্য সাক্ষাতে মিলিত হন। ছবি: বিজেএমইএ

ভারত ও বাংলাদেশের জন্য নিযুক্ত উজবেকিস্তানের রাষ্ট্রদূত (দিল্লিতে অবস্থানরত) মি. ফারহদ আরজিব ০৯ মার্চ বিজিএমইএ দপ্তরে বিজিএমইএ সভাপতি মো. সিদ্দিকুর রহমানের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন। এ সময় বিজিএমইএ’র সহ সভাপতি (অর্থ) মোহাম্মদ নাছির, পরিচালক মো. মুনির হোসেন, পরিচালক আনোয়ার কামাল পাশা ও পরিচালক জনাব আনোয়ার হোসেন (মানিক) উপস্থিত ছিলেন। সাক্ষাৎকালে তারা দ্বি-পাক্ষিক বাণিজ্য সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করেন। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, বাংলাদেশ উজবেকিস্তান থেকে তুলা আমদানি করে।

বিজিএমইএ সভাপতি উজবেক রাষ্ট্রদূতকে বাংলাদেশের তৈরি পোশাক শিল্প বিষয়ে বিস্তারিতভাবে অবহিত করেন এবং বাংলাদেশ থেকে আরও বেশি পরিমাণে তৈরি পোশাক আমদানির জন্য রাষ্ট্রদূতের মাধ্যমে উজবেক ব্যবসায়ীদের অনুরোধ জানান।

আলোচনাকালে মি. ফারহদ আজরিব উজবেকিস্তানে পোশাক শিল্প কারখানা স্থাপনে বিনিয়োগের জন্য বাংলাদেশের পোশাক ব্যবসায়ীদের আহ্বান জানান। তিনি বলেন, যেহেতু মধ্য এশিয়ার সিআইএসভূক্ত দেশগুলোর মধ্যে মুক্ত বাণিজ্যচুক্তি (এফটিএ) রয়েছে, তাই বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরা উজবেকিস্তানে পোশাক কারখানা স্থাপন করে সিআইএসভূক্ত দেশগুলোতে রফতানি করলে শুল্কমুক্ত সুবিধা পাবেন। এতে করে উভয় পক্ষই লাভবান হবেন।

উজবেক রাষ্ট্রদূত আরও বলেন, বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরা সেদেশে কারখানা স্থাপন করলে সহজেই তুলা পাবেন, সেই সাথে উজবেক সরকারের পক্ষ থেকে তাদেরকে বিনামূল্যে জমি প্রদান করা হবে এবং সুলভ মূল্যে গ্যাস ও বিদ্যুৎ সংযোগসহ অবকাঠামোখাতে সকল ধরনের সহযোগিতা প্রদান করা হবে। তারা ১৫ বছরের জন্য কর অবকাশ সুবিধাও পাবেন।

আজকের পত্রিকা/এমইউ/এআরকে/জেবি