কাউখালীর সন্ধ্যা নদীতে খাদ্য শষ্য গম ভোজাই জাহাজের সাথে ঢাকা থেকে আগত ভান্ডারিয়াগামী যাত্রীবাহী ঈগল-৮ এর ধাক্কায় ৩ জাহাজের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি।

অল্পের জন্য বেঁচেগেল যাত্রীবাহী লঞ্চের কয়েকশো যাত্রী। রক্ষা পেল ২ হাজার টন খদ্যশষ্য গম।

জানা যায় শুক্রবার ভোরে ঢাকা থেকে আসা যাত্রীবাহী লঞ্চ ঈগল-৮ কাউখালী লঞ্চঘাট ছাড়ার পর পরই অদূরে নোঙ্গর করা জাহাজ চট্টোগ্রাম থেকে আগত যশোর নওয়াপড়া গামী গম ভোজাই কোষ্টার এম, ভি হাজী মোঃ সফিউদ্দিন-৪ কে সজোরে ধাক্কাদিয়ে পাশে লোঙ্গরকরা থাকা শেখ মাজেদা খাতুন গম ভোজাই কার্গো জাহাজকেও ধাক্কা দিলে ৩টি জাহাজেরই সামনের অংশ দুমরে মুছরে যায়।

সফিউদ্দিন জাহাজের মাস্টার মোঃ আজাদ হোসেন জানান তাদের জাহাজের প্রায় ১হাজার টন গম অন্য পার্শ্বের জাহাজেও ৯ শত ৫০ টন গম ভোজাই থাকায় নিরাপত্তার জন্য কাউখালী থানা সংলগ্ন সন্ধ্যা নদীতে লোঙ্গর করা অবস্থায় ছিল।

ঈগল-৮ লঞ্চের মাস্টার বেলাল হোসেন জানান, ঘন কুয়াশার কারনে লঞ্চের মাস্টার দেখতে না পারায় এ দূর্ঘটনা ঘরছে।

-শেখ রিয়াজ আহমেদ নাহিদ