কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব মানেই নিঃসন্দেহে এক বিশাল কর্মযজ্ঞ। দেশ-বিদেশ থেকে নামী পরিচালকদের আগমন ঘটে এই সময়। চলচ্চিত্র উৎসবের প্রাণকেন্দ্র নন্দন চত্বরে চলে দেদার ফিল্মি আড্ডা। আর এবার চলচ্চিত্র উৎসব নিয়ে সিনেপ্রেমীদের সেই উন্মাদনা আরও বেড়েছে। কারণ, এবার ২৫শে পা রাখল কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব। আর অবসান ঘটল সেই দীর্ঘ প্রতীক্ষার। নজর কাড়ল একই মঞ্চে সৌরভ এবং শাহরুখের উপস্থিতি। দু’জনের প্রশংসায় পঞ্চমুখ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

প্রদীপ জ্বালিয়ে ২৫তম কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের সূচনা করলেন শাহরুখ খান। থালি গার্ল হিসেবে তাঁকে সাহায্য করলেন শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়। উৎসবের মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন বাংলার ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডর শাহরুখ খান, পরিচালক মহেশ ভাট, গৌতম ঘোষ, সন্দীপ রায়, কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায়, সৃজিত মুখোপাধ্যায়। অভিনেতা রঞ্জিত মল্লিক, প্রবীণ অভিনেত্রী রাখী গুলজার, মাধবী মুখোপাধ্যায়, তৃণমূলের তিন তারকা সাংসদ তথা টলিউড অভিনেতা দেব ও অভিনেত্রী নুসরত জাহান এবং মিমি চক্রবর্তী। এছাড়াও, চলচ্চিত্র উৎসবের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সাক্ষী থাকতে হাজির ছিলেন কোয়েল মল্লিক, শুভশ্রী গঙ্গোপাধ্যায়, রুক্মিনী মৈত্র, ঋত্বিক চক্রবর্তী, সোহম চক্রবর্তী, তনুশ্রী চক্রবর্তী, প্রিয়াঙ্কা সরকার, সৌরসেনী মৈত্র, অঙ্কুশ, পাওলি দাম, শতাব্দী রায়, ইন্দ্রানী হালদার-সহ আরও অনেকে। শারীরিক অসুস্থতার জন্য এবার অনুপস্থিত ছিলেন অমিতাভ বচ্চন। চেয়ারম্যান রাজ চক্রবর্তীর উপস্থিতিতে নতুন লোগো উদ্বোধন হল অনুষ্ঠান মঞ্চে।

শাহরুখকে সংবর্ধনা দিয়ে বরণ করে নিলেন সাংসদ নুসরত জাহান। তবে শাহরুখ কিন্তু ধন্যবাদ জানালেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়কে। কারণ, তিনিই বাংলার সঙ্গে কিং খানকে পরিচয় করিয়ে দিয়েছিলেন। ভারতীয় চলচ্চিত্র ইতিহাসকে সমৃদ্ধ করার জন্য বাংলার পরিচালকদের ধন্যবাদও জানালেন বলিউড বাদশা ।

উল্লেখ্য, এই প্রথমবার কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসবের মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন সদ্য বিসিসিআই চেয়ারম্যান তথা বাংলার ‘দাদা’ সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় এবং তাঁর স্ত্রী ডোনা গঙ্গোপাধ্যায়। অনুষ্ঠান সঞ্চালনার দায়িত্বে ছিলেন যিশু সেনগুপ্ত এবং পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়। সৌরভকে সংবর্ধনা জানালেন সুরকার জিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। রাখী গুলজারকে সংবর্ধনা জানালেন দেব। অন্যদিকে মঞ্চে খোশ মেজাজে নজর কাড়লেন ‘সড়ক’ জুটি মহেশ ভাট এবং যিশু সেনগুপ্ত। উল্লেখ্য, এবার বাংলা সিনেমাও পা রাখল শতবর্ষে।

মঞ্চে দাঁড়িয়ে সৌরভ বলেন, “আমি বিশেষ কোনও স্পিচ তৈরি করে আসিনি। ধন্যবাদ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আমাকে আমন্ত্রণ জানানোর জন্য। এবার শতবর্ষ পূরণ হল বাংলা সিনেমার। এই শহর দেখেছে সত্যজিৎ রায়, মৃণাল সেন, ঋত্বিক ঘটককে। যাঁঁদের জন্য আজ সারা বিশ্ব চেনে ভারতীয় সিনেমা এবং বাংলা সিনেমাকে। সিনেমা নিয়ে নতুন প্রজন্মের উৎসাহ দেখলেও ভাল লাগে। এই কর্মযজ্ঞের সঙ্গে জড়িত সবাইকে ধন্যবাদ। কলাকুশলী থেকে অভিনেতা-অভিনেত্রী সবাইকে শ্রদ্ধা জানাই, যাঁরা বাংলা ছবিকে আজ এই উচ্চতায় এনে দাঁড় করিয়েছেন। অনেকেই সিনেমা রিলিজ করতে পারেন না, তাদের জন্য দুয়ার খুলে দিয়েছে এই ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল।” শাহরুখ খানকেও আমন্ত্রণ জানালেন ‘বাংলার দাদা’।

বাংলাতে বক্তৃতা দিলেন অভিনেত্রী রাখী গুলজার। তিনি বলেন, “আমি এই বাংলার মেয়ে। আমার ধমনীতে বাংলা রয়েছে। আজ এই উৎসব বিগত ২৫ বছর ধরে চলছে। বাংলার মেয়ে হিসেবে আমি গর্বিত। আজকে এখানে যাঁরা উপস্থিত, তাঁদের জানাই আমার শ্রদ্ধা, শুভকামনা। আপনারা ভাল থাকুন। আমি অনেক ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল দেখেছি, কিন্তু এত আন্তরিকতা কোথাও দেখিনি।” এরপর মঞ্চেই তিনি শাহরুখকে দিয়ে গাওয়ালেন “ও আমার দেশের মাটি, তোমার পরে ঠেকাই মাথা।” তবে উল্লেখ্য ব্যক্তিগতভাবে রাজ চক্রবর্তী প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়কে আমন্ত্রণ জানালেনও। অনুপস্থিত ছিলেন প্রাক্তন চেয়ারম্যান।