সড়ক অবরোধ শিক্ষার্থীদের।

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার ব্যস্ততম চৌমুহনী এলাকায় সিএনজি অটোরিক্সার আঘাতে সুমন মিয়া (২০) নামের এক কলেজ ছাত্রের মৃত্যুতে বিক্ষোদ্ধ হয়ে উঠেছে শিক্ষার্থীরা। সহপাঠী নিহতের ঘটনায় সড়ক অবরোধ করা হয়েছে।

২৫ মার্চ সোমবার বেলা সাড়ে ১০টা থেকে উপজেলা চৌমুহনা চত্বর এলাকায় সড়ক অবরোধ করে বিভিন্ন কলেজ ও স্কুলের শিক্ষার্থীরা প্রায় দেড ঘন্টাব্যাপী করে সুমনের হত্যাকারী সিএনজি চালকের ফাঁসি ও নিরাপদ সড়কের দাবী করে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে।

বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে বক্তারা আগামী ২৪ ঘন্টার মধ্যে সুমনের ঘাতককে খুঁজে বের করে গ্রেফতারের জন্য প্রশাসনের প্রতি জোর দাবী জানান। মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ চলাকালে কমলগঞ্জ উপজেলা চৌমুহনা এলাকায় চতুর্দিকের রাস্তায় শতাধিক যানবাহন আটকা পড়ে।

গত রোববার দুপুর ১২টায় কমলগঞ্জ-মৌলভীবাজার সড়কের চৌমুহনী এলাকায় পায়ে হেঁটে যাবার সময় উপজেলা প্রশাসনের অদূরে কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড টেকনোলজির সামনে একটি সিএনজি অটোরিক্সা (মৌলভীবাজার-থ-১২৬৪৩০) পিছন থেকে সুমনকে প্রচন্ডভাবে আঘাত করে মাটিতে ফেলে দেয়। পরে আহত অবস্থায় স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে গেলে সেখান হতে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে স্থানান্তর করেন। তার অবস্থার অবনতি হলে সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেণজ হাসপাতালে নিয়ে যাবার পথে আহত সুমনের মৃত্যু হয়।

নিহত সুমন মৌলভীবাজার সরকারি কলেজের ৩য় বর্ষের মেধাবী ছাত্র এবং কমলগঞ্জ পৌরসভার দক্ষিন কুমড়াকাপন গ্রামের বাবুল মিয়ার বড় ছেলে। মৃত্যুর সংবাদে পরিবারে চলছে শোকের মাতম।

নিহতের স্বজনরা জানিয়েছে, ২৪ মার্চ রবিবার সকালে সুমন মিয়া তার বাবা বাবুল মিয়ার সাথে মৌলভীবাজারে যাবার জন্য বাড়ি হতে বের হয়। সোমবার মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশে সুমনের হত্যাকারী সিএনজি চালককে গ্রেফতারের দাবি করে শিক্ষার্থী রেজাউল করিম এর সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন নিহত সুমনের সহপাঠী জাফর সাদেক জামি, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা এড. নজরুল ইসলাম, উপজেলা ছাত্রদলের আহবায়ক গোলাম রব্বানী তৈমুর, উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাকের আলী সজিব, ছাত্রলীগ নেতা মিনহাজ নাসির, হামিম মাহমুদ, সুমন আহমেদ, হাসান আহমদ প্রমুখ।

এ সময় শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন কমলগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) সুধীন চন্দ্র দাশ, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মোমিন তরফদার, সাংবাদিক প্রনীত রঞ্জন দেবনাথ, সাংবাদিক সুব্রত দেবরায় সঞ্জয়, সাংবাদিক সাজিদুর রহমান, উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর সাধারণ সম্পাদক শাব্বির এলাহী, সমাজসেবক রাসেল হাসান বক্ত, ব্যবসায়ী আনহার আলী প্রমুখ। মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, সড়কে একটি গাড়ি আরেকটি গাড়ির সাথে প্রতিযোগিতা করে চলছে। যার ফলে প্রায় সড়কে দুর্ঘটনা ঘটে চলেছে। সড়কে দুর্ঘটনায় যারা নিহত হয়েছে তাদের সুষ্ঠু বিচার দাবি করা হয়। এসময় তারা অভিযুক্ত সিএনজি চালকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

এদিকে সিএনজি অটোরিক্সার আঘাতে কলেজ ছাত্র নিহতের ঘটনায় নিহত সুমনের বাবা বাবুল মিয়া বাদী হয়ে রোববার রাতেই কমলগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

কমলগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মো: আরিফুর রহমান মামলার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ঘটনার পর থেকে চালক পলাতক রয়েছে। তবে সিএনজি অটোরিক্সাটি থানায় নিয়ে জব্দ করা হয়েছে। পুলিশ এ ঘটনায় আসামীকে গ্রেফতারের জোর চেষ্টা চলছে।

এস,কে,দাস, কমলগঞ্জ মৌলভীবাজার