মোঃ রাসেল ইসলাম। ছবি: সংগৃহীত
ঐশ্বর্য নামের সেই মেয়েটি
মোঃ রাসেল ইসলাম
হাঁটছি আমি অন্ধকারে, মরুভুমির প্রান্ত ঘিরে।
হাতটা ছিল আমার ঐশ্বর্যের হাতে ধরা,
গাইছিলাম আপন মনে, প্রেমের জয়গান।
বলেছিলাম থাকবো পাশে সারাজীবন তোমার হয়ে।
ঐশ্বর্য নামের সেই মেয়েটি,
বলেছিল হাতটি ধরে, যাবো না কভু তোমায় ছেড়ে।
যতদিন আছে স্পন্দন আমার, বাসবো ভালো আমি তোমায়।
অন্ধকার কালোরাতে, শূন্যে ভরা মরুভুমিতে।
কাটছে মোদের দিনগুলো বেশ।
ঐশ্বর্য নামের সেই মেয়েটি,
কান্না করে বলল একদিন,
চল না যাই এই অন্ধকার ছেড়ে অন্য কোথাও?
কোন এক আলোর পথে।
থাকবো শুধু আমি, তুমি আর আমাদের ছোট্ট সংসার।
থাকবে না আর অন্য কেহ।
বললাম আমি ধৈর্য ধরো, আর এইতো কদিন
হোক না বয়স আঠারো তোমার।
ঐশ্বর্য নামের সেই মেয়েটি,
কাঁদলো হেঁসে বলল আমায়, দেখো তোমার এই সময়
হয় না যেন অবশেষে কাল!
বললাম আমি দাওনা সময় আর একটু,
করে দিব একদিন সব ঠিক।
ঐশ্বর্য নামের সেই মেয়েটি,
 কী যেন ভাবলো সে দিন,
আর আমার থেকে যাচ্ছে দূরে সরে।
হঠাৎ করে ছাড়লো হাত, বলল আমায় পাশে আছি।
ভয় পেও না শুনতে পাবে আমায়,
হচ্ছে কথা অন্ধকার এই মরুভুমিতে।
বলছি আমি গলা ছেড়ে,
আছো কি তুমি এখনও আমার পাশে?
সে বলল ভয় পেওনা,
এখনো শুধু ভালোবাসি আমিই তোমায়।