তিন আঙ্গুল কর্তন। প্রতীকী ছবি

কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারী উপজেলার পাইকেরছড়া নিম্ন-মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের এক সহকর্মীকে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে ৩ আঙুল কেটে নিয়েছেন একই বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ইমরান হোসেন বাবলা।

আহত শিক্ষকের নাম রাসেল মিয়া। তিনি পাইকেরছাড়া এলাকার কাদের সরকারের ছেলে।

২৫ মে শনিবার দুপুরের দিকে এই ঘটনা ঘটে।

এদিকে গুরুতর অবস্থায় শিক্ষক রাসেল মিয়াকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যদিকে এলাকাবাসী হামলাকারী শিক্ষক ইমরান হোসেন বাবলাকে ঘটনাস্থল থেকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছেন।

এলাকাবাসী জানান, পার্শ্ববর্তী নাগেশ্বরী উপজেলার নাখারগঞ্জ এলাকার অধিবাসী ইমরান হোসেন বাবলা পাইকেরছড়া এলাকায় ভগ্নিপতির বাড়িতে থেকে ওই বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করতো। একই বিদ্যালয়ের শিক্ষক রাসেল মিয়ার সাথে তার পেশাগত বিষয় নিয়ে দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়।

এই দ্বন্দ্বের জেরে ২৫ মে শনিবার দুপুরে বিদ্যালয়ের অফিস কক্ষে বসে কাজ করার সময় আকস্মিকভাবে রাসেল মিয়ার ওপর দা নিয়ে হামলা চালিয়ে মাথায় এবং হাতে এলোপাথাড়ি কোপাতে থাকেন ইমরান হোসেন বাবলা। এতে রাসেল মিয়ার মাথায় জখম হয় এবং ডান হাতের ৩টি আঙুল কেটে পড়ে যায়।

এ সময় রাসেল মিয়া চিৎকার দিলে আশপাশের লোকজন ছুটে এসে তাকে উদ্ধার করে এবং ইমরান হোসেন বাবলাকে আটক করে।

এলাকাবাসী আরও জানান, ইমরান হোসেন বাবলা মাদকাসক্ত। এ কারণে তার স্ত্রী তাকে ছেড়ে চলে গেছে।

ভূরুঙ্গামারী থানার অফিসার ইনচার্জ ইমতিয়াজ কবির জানান, এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে। গ্রেফতারকৃত শিক্ষক ইমরান হোসেন বাবলা মাদকাসক্ত কি না সে বিষয়ে কিছু জানা নেই। তবে তাকে মানসিকভাবে অবসাদগ্রস্ত বলে মনে হয়েছে।

আজকের পত্রিকা/এমএআরএস/জেবি