নতুন বছরকে বরণ করে নিতে বৈশাখী কালেকশনে সেজেছে ফ্যাশন হাউজগুলো। ছবি: সংগৃহীত

পয়লা বৈশাখ মানেই উৎসব। আর এ উৎসব মানেই বাঙালিয়ানা। বছর ঘুরে আবারও দরজায় কড়া নাড়ছে বৈশাখ। এখনই সময় বৈশাখী উৎসবের প্রস্তুতি নেওয়ার। বাংলা নতুন বছরকে বরণ করে নিতে বৈশাখী কালেকশনে সেজেছে ফ্যাশন হাউজগুলো।

বৈশাখের প্রথম দিনে আবহাওয়া থাকে গরম। সারাদিন ঘোরাঘুরির জন্য সাদা রঙটা তাই স্বস্তিদায়ক। আর বৈশাখের রঙ হলো লাল। তাই বৈশাখী উৎসবে সবাই লাল সাদাকেই প্রাধান্য দিয়ে থাকেন। ফ্যাশন হাউজগুলোর পোশাক সম্ভারেও লাল-সাদাকে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে। গরমের জন্য সুতি কাপড়ই সবচেয়ে আরামদায়ক। ইদানিং তাঁতের কাপড়ও বৈশাখী ফ্যাশনে প্রাধান্য পাচ্ছে।

নতুন বছরকে বরণ করে নিতে বৈশাখী কালেকশনে সেজেছে ফ্যাশন হাউজগুলো। ছবি: কমল দাশ

বৈশাখী উৎসবে বাঙালি নারীর প্রথম পছন্দ শাড়ি। পাশাপাশি নারীরা এখন সালোয়ার-কামিজ ও ফতুয়া পরেন স্বাচ্ছন্দ্যের জন্য। বৈশাখী আয়োজনে ছেলেরা যে পিছিয়ে আছে তা কিন্তু নয়। তারা পাঞ্জাবি, শর্ট পাঞ্জাবি, ফতুয়া, টি-শার্ট পরেন নিজেদের পছন্দ মাফিক। শাড়ি-পাঞ্জাবি পোশাকে বাংলার বিভিন্ন মোটিফ ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। এবারের ডিজাইনের প্রধান বৈশিষ্ট্য হলো লোকশিল্প, যা প্রায় বিলুপ্তির পথে। বিভিন্ন কাজের সমন্বয়ে পোশাকে তুলে ধরা হয়েছে সেই সব লোকশিল্পকে। ব্লক, অ্যাপলিক, এমব্রয়ডারি, স্প্রে, কম্পিউটার এমব্রয়ডারি, হাতের কাজ, কারচুপি বা কয়েকটি মাধ্যমকে একসঙ্গে ব্যবহার করা হয়েছে।

প্রতিবারের মতো এইবারও বৈশাখকে সামনে রেখে আরিয়ন ফ্যাশন হাউস নিয়ে এলো ভিন্ন ধারার পোশাক। বৈশাখের এবারের পোশাক গুলোতে যেমন আছে বৈচিত্র্য তেমনি আছে দেশীয় থিম। মোটিফ হিসেবে এবার প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে প্রাচীন স্থাপনাগুলোর নকশা। পাশাপাশি আলপনার নকশার উজ্জ্বল লতা, পাতা, ফুল নকশা হিসেবে থাকছে পোশাকে।ডিজাইনার আমেনা রহমান নিজস্ব ভাবনায় বাংলাদেশের ঐতিহ্য লোকজ কারুশিল্প তুলে ধরেছে বৈশাখী পোশাকের ক্যানভাসে। 

আজকের পত্রিকা/কমল দাশ/সিফাত