রোগীর পক্সের ফোস্কার সংস্পর্শে এলে বসন্ত রোগ ছড়ায়। ছবি: সংগৃহীত

ফাল্গুনের শুরু, বসন্ত চলে এসেছে। চারিদিকে প্রকৃতির উৎসব। মানুষের মনও খুব রঙিন। বাতাসে নতুন কুঁড়ির গন্ধ ভেসে আসে। কিন্তু দুঃখজনকভাবে এই সুগন্ধময় বাতাসে ভেসে বেড়াচ্ছে বিভিন্ন রোগের ভাইরাস। ভেরসিলো জোস্টার নামের ভাইরাসটিও ভেসে বেড়াতে পারে বসন্তের বাতাসে।

এই ভাইরাসটি মূলত চিকেন পক্স বা বসন্ত রোগের জন্য দায়ী। রোগটি খুব ছোঁয়াচে। বসন্ত রোগে শিশুরা অধিক আক্রান্ত হলেও বয়স্করাও খুব একটা নিরাপদ নয়। আক্রান্ত হওয়ার দুই থেকে তিন সপ্তাহ পরে এই রোগের লক্ষণ দেখা যায়। প্রথম দিকে জ্বর আসে, পিঠের পেছনের দিকে ব্যথা অনুভব হয় এবং গা ম্যাজ ম্যাজ করে। জ্বর আসার এক বা দুই দিন পরেই গায়ে ফুস্কুরির মতো গোটা ওঠে, যা খুব কম সময়ে পেকে যায় এবং পুঁজ জমে। এই রোগের জটিলতাও ভয়াবহ। যার দরুণ নিউমোনিয়া, এনকেফেলাইটিস, গ্লুমেরোলোনেফ্রাইটিস ইত্যাদি রোগ হতে পারে। এই রোগ যে ভাইরাস দ্বারা ছড়ায় সেটা মূলত এই শীতের শেষ আর গরমের শুরুর সময় সবচেয়ে বেশি সক্রিয় থাকে। আর যার শরীরের প্রতিরোধক ক্ষমতা কম তার পক্সের ঝুঁকি অনেক বেশি।

যেভাবে ছড়ায়

আক্রান্ত রোগীর পক্সের ফোস্কার সংস্পর্শে এলে কিংবা রোগীর কাশি বা হাঁচি থেকেও এই রোগ ছড়াতে পারে। রোগীর ব্যবহার করা জিনিস ব্যবহার করলেও বসন্তের ঝুঁকি থাকে। এছাড়া গর্ভবতী মায়ের থেকে নবজাতক শিশুরও হতে পারে যদি জন্মোত্তর মায়ের এই রোগ হয়।

চিকিৎসা  

এই সময় প্রকৃতিও অনেক কিছু জোগান দেয় আমাদের এই ভাইরাসের সাথে যুদ্ধ করার জন্য, যেমন- সজনে ফুল, সজনে শাক, নিমপাতা আর করলা। সঙ্গে শীতের কমলালেবু আর আমলকি থেকেও ভিটামিন সি’র মাধ্যমে শরীরের রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা বাড়ানো যায়। আমরা যদি সঠিকভাবে এগুলো খাই তাহলে বসন্ত হওয়ার সম্ভাবনা একটু কমে যায়। এছাড়া আক্রান্ত হওয়ার পর হোমিও কিংবা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা নেওয়া যেতে পারে। ভেরিওলিনাম ২০০ এমএল নামক একটি ঔষধ ৭ দিন- শিশুদের ক্ষেত্রে ২টি করে ট্যাবলেট, আর বড়দের ক্ষেত্রে ৪টি করে ট্যাবলেট দিনে দুইবার খেতে হবে। ফেব্রুয়ারি মাসের শুরুতেই এই ঔষধ ৭ দিন খেয়ে নিলে নিশ্চিন্ত।

শিশুদের চিকিৎসা

  • তুলসি অ্যান্টিভাইরাস, তাই ২-৪টি তুলসি পাতার সঙ্গে মধু মিশিয়ে খাওয়ানো
  •  অর্ধেক চা চামচ গুলঞ্চর রসের সঙ্গে মধু মিশিয়ে খাওয়ানো
  • গুলঞ্চর পাউডার ১২৫ মি.গ্রা. মধুর সঙ্গে মিশিয়ে খাওয়ানো

প্রাপ্তবয়স্কদের চিকিৎসা

  • ৭-৮টি তুলসি পাতা মধুর সঙ্গে মিশিয়ে খাওয়ান
  • ৩ চা চামচ গুলঞ্চর রস মধুর সঙ্গে মিশিয়ে খাওয়ান
  • গুলঞ্চর পাউডার ২৫০ মি.গ্রা. মধুর সঙ্গে মিশিয়ে খাওয়ান

সতর্কতা

ফেব্রুয়ারি আর মার্চ মাসে পাঁঠার মাংস এবং দুধ বা যেকোনো রকম দুধের তৈরি জিনিস খাওয়া একদম বন্ধ রাখতে হবে, তাহলে চিকেন পক্সের সম্ভাবনা কিছুটা রোধ হয়।

আজকের পত্রিকা/সিফাত