উহান থেকে দূরে চীনের অন্য চার অঞ্চলে ভাইরাস আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছে কর্তৃপক্ষ। এর মধ্যে প্রথমজন হেবেই প্রদেশের, দ্বিতীয়জন হেইলংজিয়াং প্রদেশের, তৃতীয়জন হেনান প্রদেশের এবং চতুর্থজন সাংহাই শহরের বাসিন্দা। চীনের স্বায়ত্তশাসিত ম্যাকাউ অঞ্চলে আক্রান্ত হয়েছেন দুজন। চীনের আধা স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চল হংকংয়ে পাঁচজন আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

কানাডা: শনিবার কানাডার রাজধানী টরোন্টোর এক হাসপাতাল থেকে দেশটিতে করোনা ভাইরাসে একজন আক্রান্ত হওয়ার খবর নিশ্চিত করা হয়। কর্মকর্তারা জানান, আক্রান্ত ব্যক্তির বয়স পঞ্চাশোর্ধ্ব। সম্প্রতি তিনি উহান ভ্রমণ করে ২৩ জানুয়ারি টরোন্টো পৌঁছান।

ফ্রান্স: প্রথম ইউরোপীয় দেশ হিসেবে ফ্রান্সে তিনজন করোনা ভাইরাস আক্রান্ত হওয়ার খবর নিশ্চিত করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ৪৮ বছর বয়সী এক ব্যক্তি রয়েছেন, যিনি সম্প্রতি উহান ভ্রমণ করেছেন। অন্য দুই ব্যক্তিও সম্প্রতি চীন ভ্রমণ করেছেন।

জাপান: নতুন করোনা ভাইরাসে এ পর্যন্ত জাপানে তিনজন আক্রান্ত হওয়ার খবর নিশ্চিত করেছে কর্তৃপক্ষ। এর মধ্যে তিনজনই সম্প্রতি উহান ভ্রমণ করেছেন।

মালয়েশিয়া: মালয়েশিয়ায় তিনজন এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তিনজনই সম্প্রতি উহান ভ্রমণ করেছেন।

নেপাল: নেপালে ৩২ বছর বয়সী এক ব্যক্তি এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন, যিনি উহান থেকে দেশটিতে গিয়েছিলেন। সুস্থ হওয়ার পর তাকে হাসপাতাল ছাড়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

সিঙ্গাপুর: সিঙ্গাপুরে অন্তত তিনজন নতুন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। তাদের মধ্যে রয়েছেন ৬৬ বছর বয়সী এক বৃদ্ধ ও তার ছেলে (৩৭) এবং ৫২ বছর বয়সী এক নারী। তারা সবাই সম্প্রতি উহান ভ্রমণ করেছেন।

দক্ষিণ কোরিয়া: দক্ষিণ কোরিয়ায় দুজন এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। দুজনই উহান ভ্রমণ করে দেশটিতে গিয়েছিলেন। চিকিৎসা দেওয়ার পর দুজনই কিছুটা স্থিতিশীল রয়েছেন।

তাইওয়ান: তাইওয়ানে এ পর্যন্ত তিনজন নতুন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এ ঘটনার পর উহান ভ্রমণে বিধিনিষেধ আরোপ করে দেশটি।

থাইল্যান্ড: থাইল্যান্ডে পাঁচজন এ ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর নিশ্চিত করা হয়েছে। তাদের মধ্যে চারজন চীনা নাগরিক যারা উহান থেকে এসেছেন এবং অপর একজন সম্প্রতি উহান ভ্রমণ করেছেন।

এছাড়া, নতুন করে আরও অনেক দেশে এ ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।