মানিকগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী নাজমুল হাসান। ছবি : সংগৃহীত

সদর উপজেলা এলাকার সার্বিক উন্নয়ন করার অঙ্গীকার করেছেন সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী মোহাম্মদ নাজমুল হাসান।

তিনি বলেন, ‘ছোট থেকে জীবনের সঙ্গে যুদ্ধ করে সততার সাথে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করেছি। আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের রহমত ও ময়-মুরব্বিদের দোয়ায় নিজে নিষ্ঠা ও সততার সাথে সমাজ সেবা উন্নয়ন কাজে নিজেকে নিয়োজিত করতে পেরেছি।’

১৭ মার্চ রবিবার দক্ষিণ মানিকগঞ্জের বালিরটেক আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে একান্ত সাক্ষাতে তিনি আজকের পত্রিকাকে এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘আমি নেতিবাচক রাজনীতি পছন্দ করি না ও অন্যায়কে প্রশ্রয় দেই না।’

তিনি আরও বলেন, ‘গরিব দু:খী মানুষের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে চলতে ভালবাসি। আমি বিশ্বাস করি পেশি শক্তির থেকে জনগণের শক্তির ক্ষমতা অনেক বেশি এবং আমি আরও বিশ্বাস করি যার সাথে জনগণের ভালবাসা থেকে তার সাথে আল্লাহর রহমত থাকে।’

এলাকার উন্নয়ন ও রাজনীতি সম্পর্কে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ‘আমার সব থেকে বড় শক্তি সদর উপজেলাবাসী ও আপনাদের দোয়া ও ভালবাসা।এলাকাবাসীর দোয়া ও ভালোবাসা যতদিন আমার উপর আছে ইনশাআল্লাহ কোন অশুভ শক্তি আমার পথের বাঁধা হয়ে দাঁড়াতে পারবে না।’

তিনি সকল মানুষের ভালোবাসা ও দোয়া নিয়ে সারা জীবন মানিকগঞ্জবাসীর পাশে থাকার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন।

তার সমর্থকরা জানান, নাজমুল হাসান শুধু রাজনীতিবিদ ও সমাজ সেবকই নন, সরকারি দেবেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ব্যবস্থাপনা বিষয়ে অনার্স এবং প্রাইম ইউনির্ভাসিটি থেকে এল এল বি সম্পন্ন করেছেন।

ভাড়ারিয়া ইউনিয়নের কৃষক লীগের সভাপতি রতন বিশ্বাস বলেন, ‘তাকে ঘিরেই এ উপজেলার মানুষ পরিবর্তনের স্বপ্ন দেখছেন। দলীয় নীতি ও শৃঙ্খলা রক্ষায় যুবলীগ নেতা মোহাম্মদ নাজমুল হাসান এখনও অপ্রতিদ্বন্দী। তিনি ছাত্র জীবন থেকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এর রাজনীতির সাথে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত। ২০০৩ সালে বি.এন.পি-জামাত সরকার ক্ষমতায় থাকা কালীন সময়ে শত প্রতিকূলতার মধ্যেও সদর উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য পদ লাভ করেন।এছাড়া ভাড়ারিয়া ইউনিয়নের আহ্বায়ক এর দায়িত্ব এবং স্বাধীনতা যুদ্ধের পর ভাড়ারিয়া ইউনিয়নের প্রথম ছাত্রলীগের পূণাঙ্গ কমিটি গঠন করে রাজপথের আন্দোলনকে আরও বেগবান করে তুলেন নাজমুল হাসান।তিনি বিভিন্ন সময় আওয়ামী লীগ অংগ সংগঠন ও বিভিন্ন শাখার দায়িত্ব পালন করে আসছেন।

আজকের পত্রিকা/আরবি/এমএইচএস