আসন্ন ঈদে বিমানের ভাড়াও অতিরিক্ত নেয়া হচ্ছে। ছবি : সংগৃহীত

আসন্ন ঈদুল ফিতরের আগে ও পরে রাজধানী ছাড়াও চট্টগ্রাম অঞ্চলের সঙ্গে দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন এলাকায় ১০ লাখ মানুষ যাতায়াত করলেও সরকারি সড়ক, নৌ ও আকাশ পরিবহন খাতের তেমন কোন অবদান থাকছে না এবারও।

শুধু নৌপরিবহন খাতেই ৮ লাখ এবং সড়কপথে আরও পৌনে দু’লাখ মানুষ যাতায়াত করবে বলে আশা করছেন সংশ্লিস্ট বিশেষজ্ঞ মহল। তারা বলেছেন, ‘রাষ্ট্রীয় নৌপরিবহন সংস্থা বিআইডব্লিউটিসি এবং সড়ক পরিবহন সংস্থা বিআরটিসির অবস্থা এবার সাম্প্রতিককালের সবচেয়ে করুণ।

জাতীয় পতাকাবাহী আকাশ পরিবহন সংস্থাটি ঈদ উপলক্ষে ভাড়া প্রায় তিনগুণ বৃদ্ধি করলেও কোন বিশেষ বিমানের ব্যবস্থা করছে না। ফলে প্রতিটি পরিবহন খাতেই বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোর মনোপলি ব্যবসার সব আয়োজন সম্পন্ন হয়েছে।

বিআইডব্লিউটিসি’র পুরনো জাহাজ দিয়েই স্পেশাল জাহাজ। ছবি : সংগৃহীত

জানা গেছে, রাষ্ট্রীয় সড়ক, নৌ ও আকাশ পরিবহন সংস্থার উদাসীনতা আর ব্যর্থতার সুযোগে বেসরকারি লঞ্চ, বাস ও বিমানের প্রতিটি খাতেও ভাড়া বাড়ানো স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি। উপরন্তু বাড়তি ভাড়ায়ও লঞ্চ, বাস ও উড়ো জাহাজের একটি টিকিটের জন্য মানুষ হন্যে হয়ে ঘুরছে এক কোম্পানির অফিস থেকে অন্য কোম্পানির অফিসে।

ঈদ উপলক্ষে রাজধানীর সঙ্গে দক্ষিণাঞ্চলের ৩০টি রুটে এবারও শতাধিক বেসরকারি নৌযান যাত্রী পরিবহন করবে। এর মধ্যে শুধু ঢাকা-বরিশাল-ঢাকা নৌপথেই দুটি ক্যাটামেরনসহ ২০টি নৌযান চলাচল করবে। উপরন্তু ২ জুন থেকে ৫ জুন পর্যন্ত বেসরকারি নৌযানগুলো ৎ প্রতিদিন ডবল ট্রিপে যাত্রী বহন করবে।

আবার ঈদের পর ৮ জুন থেকে এক সপ্তাহ এসব নৌযান প্রতিদিন ডাবল ট্রিপে বরিশাল বন্দর থেকে যাত্রী বহন করবে। একইভাবে ঢাকা থেকে ভোলা, পটুয়াখালী, পিরোজপুর ও ঝালকাঠী সহ জেলাগুলোর বিভিন্ন রুটেও অতিরিক্ত যাত্রীবাহী নৌযান চলাচল করবে বলে জানা গেছে।

বিআরটিসি বাসের অবস্থাও করুণ। ছবি : সংগৃহীত

তবে এ অবস্থায়ও রাষ্ট্রীয় বিআইডব্লিউটিসি ঈদে ঘরমুখো দক্ষিণাঞ্চলের যাত্রীদের জন্য কিছুই করতে পারছে না। সংস্থাটির নতুন পুরনো ৮টি যাত্রীবাহী নৌযানের মধ্যে ‘এমভি সোনারগাঁও ও পিএস অষ্ট্রিচ’ নৌযান দুটি বিনা দরপত্রে বেসরকারি খাতে পানশালার জন্য ইজারা দেয়া হয়েছে।

বিআইডব্লিটিসি সূত্রে জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে ‘পিএস মাহসুদ’র ছাদ চুইয়ে পানি পড়ায় সারা বছর অপেক্ষার পরে মেরামতে পাঠান হয়েছে রোজার কিছুদিন আগে। ‘পিএস লেপচা ও পিএস-টার্ণ’র অবকাঠামো, মূল ইঞ্জিন ও প্যাডেলের দুরবস্থা এখন সব বর্ণনার বাইরে। তবে এসব প্যাডেল জাহাজের প্রায় আড়াইগুণ অতিরিক্ত জ্বালানি ব্যয়ের লোকসানী দুটি জাহাজ ‘এমভি মধুমতি ও এমভি বাঙালি’ থাকছে এবারের ঈদ যাত্রায়।

তবে বিআইডব্লিউটিসির নৌযানগুলো ঢাকা ও বরিশাল থেকে যে সময়ে গন্তব্যে যাত্রা করে, তখন কোন যাত্রী স্টেশনে পৌঁছাতেই পারে না। ফলে বেসরকারি নৌযানগুলো যেখানে ধারন ক্ষমতার তিনগুন পর্যন্ত যাত্রী নিয়ে চলাচল করে, সেখানে সরকারি নৌযানে ক্ষমতার অর্ধেক যাত্রীও পায়না।

পাশাপাশি ঈদের আগে অনেক ঢাকঢোল পিটিয়ে সংস্থাটি কয়েকটি ‘বিশেষ সার্ভিস’ পরিচালনা করলেও ঈদ পরবর্তী কর্মস্থলমুখী যাত্রী পরিবহনে হাত গুটিয়ে বসে থাকছে। এদিকে এবারও ঈদের আগে-পরে বরিশালসহ দক্ষিণাঞ্চল থেকে প্রতিদিন গড়ে ৩শ বেসরকারি বাস রাজধানী ঢাকা সহ উত্তরাঞ্চলের বিভিন্ন রুটে চলাচলের প্রস্তুতি চূড়ান্ত করলেও রাষ্ট্রীয় বিআরটিসির বরিশাল বাস ডিপোতে অচল গাড়ির ভাগারে স্ফিত হচ্ছে।

এই ডিপোটিতে সাম্প্রতিককালের প্রায় অর্ধশত বাস থাকলেও এখন সচল গাড়ির সংখ্যা ৩০টিরও নিচে। যার মধ্যে মাত্র ৮টি নতুন বাস রয়েছে। ইতোপূর্বে বরিশাল থেকে মাওয়া রুটে এসি বাস চললেও এখন তা অতীত। এদিকে বরিশাল-ঢাকা আকাশ পথে জাতীয় পতাকাবাহী বিমানের উড়ান এখনো সপ্তাহে মাত্র ৫টি। ঈদ উপলক্ষে কোন বিশেষ ফ্লাইট পরিচালনা করছে না রাষ্ট্রীয় এই আকাশ পরিবহন সংস্থাটি। তবে ভাড়া ২৭শ টাকার স্থলে সাড়ে ৭ হাজার টাকায় উন্নীত করা হয়েছে।

অপরদিকে বেসরকারি নভোএয়ার প্রতিদিন ফ্লাইট পরিচালনার করছে। বেসরকারি ইউএস-বাংলা এয়ারওয়েজও ঈদের আগে ৪টি বিশেষ ফ্লাইট পরিচালনা করছে বরিশাল সেক্টরে।

আজকের পত্রিকা/আর.বি/