বাচ্চাদের সামনেই যে সব বাবা-মা ই-সিগারেট ব্যবহার করছেন, তাদের আচরণ হতাশাজনক। ছবি: সংগৃহীত

ই-সিগারেট ভেপ বাচ্চাদের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর না, এমনটা ভেবে অনেক বাবা-মাই ঘরে বাইরে বাচ্চাদের সামনেই ভেপ টানছেন। ৭৫০ জন পিতা-মাতা নিয়ে একটি গবেষণায় দেখা গেছে, ৩৮ শতাংশ বাবা-মা ধূমপান করেন এবং ২২ শতাংশ বাবা-মা এসব থেকে বিরত আছেন।

আর ৫৬ শতাংশ বাবা-মা ই-সিগারেট ব্যবহারকারী, তারা ঘরে-বাইরে বাচ্চাদের আসেপাশেই এই জিনিস ব্যবহার করছেন।মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাসাচুসেটস জেনারেল হাসপাতালের প্রধান লেখক জেরেমি ড্রেমার বলেন, ‘বাচ্চাদের সামনেই যেসব বাবা-মা ঘরে এবং গাড়ির মধ্যে ই-সিগারেট ব্যবহার করছেন, তাদের আচরণ হতাশাজনক।’ তিনি আরও বলেন, ‘ই-সিগারেট ব্যবহার করা বাবা-মায়ের জন্য ক্ষতিকর কিছুই না। তবে বাচ্চাদের জন্য এটি অবশ্যই ক্ষতিকর।’

ই-সিগারেটে বিদ্যমান আলট্রা-ফাইন টক্সিকের বৈশিষ্ট্য বাচ্চাদের শ্বাস প্রশ্বাসের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। ছবি: সংগৃহীত

ই-সিগারেটে যে সব উপাদান থাকে, তা নিঃসন্দেহে সিগারেটের থেকে ভালো। তবে শিশুদের উপস্থিতিতে এটির ব্যবহার কখনই যথাযোগ্য হতে পারে না। ই-সিগারেট ব্যবহারকারীদের ইউরিনে কার্সিনোজেনেটিক জৈব যৌগ সনাক্ত করা হয়েছে এবং পেডিয়াট্রিকস জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে ই-সিগারেটের ধোঁয়া যখন ভেতরে যায়, তখন ভেতরে নিকোটিন জমা হয়।

ই-সিগারেটের নানা বিজ্ঞাপন দেখে বাবা-মা বিভ্রান্ত হয়ে থাকেন যে, এর ধোঁয়া শিশুর জন্য ক্ষতিকর না। বিজ্ঞাপনে শুধু এটাই বলে হয়ে থাকে যে, এতে কোনো প্রকার নিকোটিন থাকে না, তাই এটি ক্ষতিকর নয়। কিন্তু এটা বলা হয় না যে, এতে বিদ্যমান আলট্রা-ফাইন টক্সিকের বৈশিষ্ট্য বাচ্চাদের শ্বাস প্রশ্বাসের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর।

আজকের পত্রিকা/রিয়া/সিফাত