ফারাক্কা বাঁধ। ছবি: সংগৃহীত

ফারাক্কা বাঁধের স্লুইস গেটগুলো প্রতিদিন চার ঘণ্টা আর কিছুটা ওপরে তুলে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারতের সরকার। বাংলাদেশের পদ্মার ইলিশ সাঁতরে যেন ভারতে যেতে পারে তাই এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। ভারতের এলাহাবাদ পর্যন্ত ইলিশের চলার পথের বাধা সরাতে ২০১৯ সালের জুন মাস থেকেই এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে।

ইলিশ জুন মাসে ডিম পাড়ে। এই মৌসুমে সমুদ্রের লোনা পানি থেকে ইলিশ বাংলাদেশের নদীগুলোতে উঠে আসে। কিন্তু ফারাক্কা বাঁধের নেভিগেশন লকের কারণে এতদিন পর্যন্ত বাংলাদেশ অংশেই ইলিশের চলাচল সীমাবদ্ধ থাকত। বাঁধ পার হয়ে উজানের দিকে মানে ভারতের দিকে যাওয়া সম্ভব ছিল না ইলিশের জন্য। ইতিমধ্যে নেভিগেশন লকের ডিজাইনেও পরিবর্তন করা হয়েছে ইলিশ যেন সহজেই ফারাক্কা পার হয়ে উজানের দিকে যেতে পারে।

ভারতের কর্মকর্তারা বলছেন, ভারতের কৃষি গবেষণা কাউন্সিল, অভ্যন্তরীণ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট, কেন্দ্রীয় পানি কমিশন ও ফারাক্কা বাঁধ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে পরামর্শ করেই ভারত সরকার এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এ ব্যাপারে ভারতের পানিসম্পদমন্ত্রী নিতিন গডকড়ী ৮ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার বলেছেন, গঙ্গায় জীববৈচিত্র বাড়াতে যেসব পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে তার মধ্যে এটি একটি।

ভারতের জলপথ কর্তৃপক্ষের ভাইস চেয়ারম্যান প্রবীর পাণ্ডে বলেছেন, প্রতিদিন রাত ১টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত ফারাক্কার গেট খোলা রাখা হবে। কারণ এ সময়ই ইলিশ বেশ চলাচল করে।