ইলিশ আহরণে বাংলাদেশ বিশ্বের অন্যতম শীর্ষ দেশ। ছবি : সংগৃহীত

২০০২-০৩ অর্থবছরে যেখানে ইলিশের উৎপাদন ছিল ১ লাখ ৯৯ হাজার ৩২ মেট্রিক টন, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে তা বেড়ে দাঁড়ায় ৫ লাখ ১৭ হাজার মেট্রিক টনে। আগামী ৫ বছরে ইলিশের উৎপাদন ৫ লাখ ৫০ হাজার মেট্রিন টন ছাড়িয়ে যাবে বলেও আশা প্রকাশ করেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী মো. আশরাফ আলী খান খসরু।

প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রীর দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ২০১২-১৩ অর্থবছরে ৩ লাখ ৫১ হাজার মেট্রিক টন, ২০১৩-১৪ অর্থবছরে ৩ লাখ ৮৫ হাজার মেট্রিক টন, ২০১৪-১৫ অর্থবছরে ৩ লাখ ৮৭ হাজার মেট্রিক টন, ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ৩ লাখ ৯৫ হাজার মেট্রিক টন, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ৪ লাখ ৯৬ হাজার মেট্রিক টন এবং ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ৫ লাখ ১৭ মেট্রিক টন ইলিশ উৎপাদিত হয়েছে।
জাটকা ধরা নিষিদ্ধকরণ, প্রজননের সময় ইলিশ ধরা বন্ধসহ সরকারের নানামুখী পদক্ষেপে ইলিশের উৎপাদন বেড়েছে বলে প্রতিমন্ত্রী জানান।

ইলিশ আহরণে বাংলাদেশ বিশ্বের অন্যতম শীর্ষ দেশ। বিশ্বের ৭৫ শতাংশ ইলিশ বাংলাদেশেই আহরিত হয়। বাংলাদেশের ইলিশ সুস্বাদু। এর ব্যাপক চাহিদা ভারতেও রয়েছে। রপ্তানিতে বাংলাদেশি ইলিশের ব্র্যান্ডিংয়ের সুবিধার জন্য ২০১৭ সালে এ মাছটিকে সরকার ‘ভৌগলিক নির্দেশক’ (জিওগ্রাফিক্যাল ইনডিকেশন) পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি দেয়।

আজকের পত্রিকা/আ.স্ব