শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিব

গত ১৪ জুলাই কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ কর্তৃক স্বাক্ষরিত ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের কমিটি অনুমোদনে কোনো ধরনের আর্থিক লেনদেন হয়নি বলে দাবি করেছেন শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিব। এছাড়াও ফাঁস হওয়া অডিও ক্লিপগুলি নিজের নয় বলেও দাবি করেন তিনি।

রাকিব বলেন, উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে আমার কণ্ঠের নকল করা হয়েছে। আমি যে ব্যাক্তির সাথে কথা বললাম তাকে সামনে নিয়ে আসা হোক বলে চ্যালেঞ্জ করেছি। অথচ তখন বলা হচ্ছে সে অজ্ঞাত ব্যাক্তি। তাহলে এটা কি প্রমানিত হয় না যে আমাকে পরিকল্পিতভাবে ফাঁসানোর চেষ্টা করা হয়েছে? এছাড়াও তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের সত্যতা প্রমানিত হলে সেচ্ছায় তিনি পদত্যাগ করবেন বলেও দাবি করেন রাকিব।

তিনি আরো বলেন, ইতোমধ্যে অডিও ক্লিপের বিষয়ে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থানা ও কুষ্টিয়া মডেল থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছি। বিষয়টি নিয়ে এর মধ্যে তদন্ত শুরু করেছেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। অথচ তদন্তধীন বিষয়কে নিয়ে একটি মহল ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়কে অস্থিতিশীল করার চেষ্টা করছে।

এবিষয়ে শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি রবিউল ইসলাম পলাশ বলেন, বিষয়টি ফেসবুক ও ইন্টারনেটের মাধ্যমে জেনেছি। তার বিরুদ্ধে যে সকল অভিযোগ এসেছে সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ এর যথাযথ ব্যাবস্থা গ্রহণ করবে।

উল্লেখ্য, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিবের ২টি অডিও ক্লিপ ফাঁসের অভিযোগ উঠে। এর একটি ক্লিপে তিনি কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগকে টাকা দিয়ে নেতা হয়েছেন ও অপর ক্লিপটিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন ড্রাইভার নিয়োগের বিষয়ে এক ব্যাক্তির সাথে কথা বলেন। বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছাড়িয়ে পড়লে অডিও ক্লিপগুলি তার নয় বলে দাবি করেন তিনি।

এইচ কে জে/ইবি