ইবিতে মানববন্ধন

তিন দফা দাবি নিয়ে আন্দোলন করছেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা সমিতি। ২ আগস্ট থেকে দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত তারা এ আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন। গত তিন দিন ধরে তারা অবস্থান কর্মসূচী ও কর্মবিরতি পালন করে আসছেন।

এতে একাডেমিক ও প্রশাসনিক কাজ চরমভাবে ব্যহত হচ্ছে। হাজার হাজার শিক্ষার্থী হচ্ছে ভোগান্তির শিকার। তবে অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয় কিভাবে এটি বাস্তবায়ন করেছে তা যাচায়-বাছায় এর জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন গত ৩১ আগস্ট অনুষ্ঠিত সিন্ডিকেটে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে। কর্মকর্তাদের দাবি মেনে নেওয়ার আশ্বাস দিয়ে তাদের সাথে দফায় দফায় আলোচনায় বসলেও কোন কিছুর তোয়াক্কা করছেন না কর্মকর্তারা।

উপ-রেজিস্ট্রার ও সমমানের কর্মকর্তাদের বেতন স্কেল ৪র্থ গ্রেডে এবং সহকারী রেজিস্ট্রার ও সমমানের বেতন স্কেল ৬ষ্ঠ গ্রেডে উন্নীত করা, কর্মঘন্টা সকাল ৯ থেকে বিকাল সাড়ে ৪ টার পরিবর্তে সকাল ৮ থেকে দুপুর ২টা ও চাকরীর বয়সসীমা ৬২ বছরের দাবিতে আন্দোলনে নামেন কর্মকর্তারা। সোমবার থেকে অনিদৃষ্ট কালের জন্য কর্মবিরতি ঘোষণা করেন তারা।

বিষয়টি ভাবিয়ে তুলেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সচেতন শিক্ষক-শিক্ষার্থী মহলকে। তারা মনে করছেন এটি কর্মকর্তাদের মূল দাবি নয়। তাদেও মূল দাবি ভিসির পতন। আর এ আন্দোলনে ইন্ধন দিচ্ছে একটি বিশেষ মহল যার মূল উদ্দেশ্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫৩৭ কোটি টাকার মেগা প্রকল্প লুট-পাট যা ভিসি ড. রাশিদ আসকারী দায়িত্বে থাকা অবস্থায় সম্ভব না।

বর্তমান ভিসি ড.আসকারী দায়িত্ব নেওয়ার তিন বছর পার হয়েছে। এর মধ্যে একাডেমিক প্রশাসনিক ও অবকাঠামোগত ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। সেশনজট মুক্ত হয়েছে। বিশ^বিদ্যালয় আন্তর্জাতিকীকরনের দিকে এগিয়ে চলেছে। এসময় একটি মহল ভিসিকে চাপে রাখতে শকুনেরমত লেগে আছে।

কর্মকর্তাদের আন্দোলন ভিসি পতন আন্দোলনের রুপরেখার অংশ হিসেবে দেখছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। তাছাড়া কেন তাদের দাবি মেনে নেওয়ার আশ্বাস দেয়ার পরও তারা আন্দোলন স্থগিত অথবা বন্ধ করছেন না।

এদিকে কর্মকর্তাদের এ আন্দালন নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নিন্দার ঝড় তুলেছে শিক্ষার্থীরা। বিভিন্ন ফেসবুক গ্রুপ থেকে ও নিজেদেও অয়ালে কর্মঘন্টা কমানোসহ ও অন্যান্য দাবির বিষয়ে বিরুপ মন্তব্য করছেন শিক্ষার্থীরা। কর্মকর্তাদের অযৌক্তিক উল্লেখ করে তাদের সাথে পাল্টা-পাল্টি কর্মসূচী পালন করার ঘোষণা দিচ্ছে তারা।

-আজকের পত্রিকা/ইবি/প্রতিনিধি