আদালত। প্রতীকী ছবি

ইন্দুরকানীতে উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সেলিনা বেগমের দুই পা পিটিয়ে ভাঙ্গার ঘটনায় আদালতের নির্দেশে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ ঘটনায় একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

রবিবার মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রীর স্বামী জাহিদ হোসেন বাদী হয়ে পিরোজপুর সিনিয়র চীপ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেডের আদালতে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মৃধা মোঃ মনিরুজ্জামান ও তার ছেলে উপজেলা স্বেচ্ছসেবক লীগ সভাপতি মাহমুদুর রহমান (সোহেল), আঃ রশিদ হাওলাদার, আলমগীর হাওলাদার, আলাউদ্দিন হাওলাদার সহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ করলে আদালত ইন্দুরকানী থানার ওসিকে মামলাটি এজাহার হিসাবে গ্রহনের নির্দেশ দেন।

আদালতের নির্দেশের কপি রবিবার দুপুরে ইন্দুরকানী থানায় পৌছলে ইন্দুরকানী থানার ওসি মামলাটি রেকর্ড করে এবং ওই মামলার এজাহারভুক্ত লোকমান ফকির নামে এক আসামীকে গ্রেফতার করে।

এদিকে পিরোজপুর জেলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মহিলালীগ নেত্রীর অবস্থার অবনতি তার পায়ের দ্রুত অপারেশন করতে হবে বলে জানান তার স্বামী জাহিদ হোসেন।

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার উপজেলা মহিলা লীগ নেত্রী সেলিনা বেগম তার স্বামীকে নিয়ে নিজেদের জমিতে ধানের বীজ রোপন করে বাড়ি ফেরার পথে স্থানীয় প্রতিপক্ষ রশিদ হাওলাদার, আলাউদ্দিন হাওলাদার, আলমগীর হাওলাদার, বাদশা মৃধা, বশির মৃধা, শহিদুল হাওলাদার, নাইম হাওলাদার ও গফ্ফার হাওলাদার সহ কয়েক জন তাদের পথ আগলে দাড়াঁয় এবং তাদের উপরে হামলা চালায়।

এক পর্যায়ে তার স্বামী জাহিদ হোসেন হাওলাদার কে কয়েকজন মিলে টেনে হিচড়ে তার সামনে থেকে নিয়ে যায়। পরে হামলাকারীরা সেলিনা বেগমকে নিয়ে একটি বাড়িতে আটকে লোহার রডে পাটের বস্তা পেচিয়ে পিটিয়ে তার দুই পা ভেঙ্গে ফেলে এবং তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে পিটিয়ে জখম করে। পরে তার স্বামী বিষয়টি ইন্দুরকানী থানা পুলিশ কে জানালে পুলিশ এসে তাকে উদ্ধার করে পিরোজপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

ইন্দুরকানী থানার ওসি মো: হাবিবুর রহমান জানান, জমি সংক্রান্ত বিরোধের কারনে মহিলালীগ নেত্রীর পা ভাঙ্গা ঘটনায় ১৪ জনকে আসামী করে মামলা রেকর্ড করা হয়েছে। এ ঘটনায় এজাহার ভুক্ত একজন আসামী গ্রেফতার করা হয়েছে।

মোঃ মারুফুল ইসলাম/ইন্দুরকানী