আদালত। প্রতীকী ছবি

পিরোজপুরের ইন্দুরকানীতে সপ্তম শ্রেণীর এক মাদরাসা ছাত্রীকে বিয়ে দেয়ার অপরাধে বরও কনে পক্ষকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা প্রদান করেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ।

সোমবার দুপুরে উপজেলার কালাইয়া গ্রামে এ জরিমানা করা হয়।

জানা গেছে, একই গ্রামের আ: রশিদ মোল্লার ছেলে মো: জাহিদুল ইসলাম মোল্লার (১৮) এর সাথে ওই মাদ্রাসা ছাত্রীর বাল্য বিয়ের আয়োজন চলছিল।

স্থানীয় লোকজন জানান, ওই দিন সকাল থেকেই চলছিল বিয়ের আয়োজন, রান্না বান্না সহ সব আয়োজন শেষ । বর আসার জন্য কন্যা পক্ষ অপেক্ষা করছেন। এমন সময় বরের পরিবর্তে ওই বাড়িতে এসে হাজির হলেন থানা পুলিশ।

থানা পুলিশ বিয়েতে বাধা দিলে বর ও কনে পক্ষ বিয়ে বন্ধ করে দেয়ার অভিনয় করে চলে যান। পরে ওই দিন দুপুরে ওই বিয়ে অনুষ্ঠিত হয়। এ খবর পেয়ে সেখানে গিয়ে হাজির হন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হোসাইন মো. আল মোজাহিদ।

স্থানীয় ইউপি সদস্য জামাল হোসেন জানান, ওই দিন দুপুরে ওই বাড়িতে বিয়ে চলাকালে থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ (ওসি) উপস্থিত হয়ে বাল্য বিয়ে বন্ধ করে দেন। কিন্তু তিনি চলে যাওয়ার পরে বর ও কনে পক্ষ ওই দিন বিকালে ওই বিয়ের আযোজন করেন।

এ খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা গিয়ে বর ও কনে পক্ষকে আটক করে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে ১০ হাজার টাকা জরিমানার আদেশ প্রদান করেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হোসাইন মো. আল মোজাহিদ জানান, বিয়ের অনুষ্ঠানের খবর শুনে সেখানে গিয়ে বর ও কনে পক্ষকে আটক করে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে তাদেরকে ১০ হাজার টাকা জরিমানার আদেশ প্রদান করি।

-মারুফুল ইসলাম/ইন্দুরকানী