ইউপি চেয়ারম্যানের অনিয়মের বিরুদ্ধে ভোলায় মানববন্ধন

ভোলা রাজাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের অনিয়ম-দূর্নীতি ও অত্যাচারের প্রতিবাদে ভোলা প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছেন এলাকাবাসী।

রবিবার বেলা ১১টার দিকে ভোলা প্রেসক্লাবের সামনে সদর উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. মিজানুর রহমান খাঁ’র বিরুদ্ধে ওই ইউনিয়নের নারী-পুরুষরা এ মানববন্ধন অংশ গ্রহন করেন।

এ সময় বক্তব্য রাখেন রাজাপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক মো. ইউসুফ হোসেন, ৩ নং ওয়ার্ডের সিনিয়র সহ-সভাপতি মো. দুলাল, ৪নং ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান প্রমূখ।

মানববন্ধনে বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, রাজাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হওয়ার পর মিজানুর রহমান খাঁ’ তার পালিত ক্যাডার বাহিনী দিয়ে এলাকার মানুষকে জিম্মি করে নানা অনিয়ম-দূর্নীতি ও অত্যাচার করে আসছে।

এলাকার কেউ তার অপকর্মের প্রতিবাদ করলে তাদেরকে মিথ্যা চুরি, ডাকাতি ও মাদক মামলা আসামী করে মামলা দিয়ে হয়রানি করেন। এছাড়াও চেয়ারম্যান মিজান ইউনিয়ন পরিষদের জেলেদের নামে সরকারি চাল জেলেদের না দিয়ে তার পালিত ক্যাডারদের মাঝে বিতরণ করেন। গৃহহীনদের জন্য বরাদ্দকৃত ঘর দেয়ার নাম করে মানুষের কাছ থেকে হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েও কোন ঘর দেয়নি। তার অনিয়ম নিয়ে কেউ মুখ খুললে তাদেরকে চেয়ারম্যানের পালিত ক্যাডার সাদ্দাম, মাইনুদ্দিন ও নাছির সরদারকে দিয়ে হুমকি-ধামকি ও অত্যাচার করে।

এ নিয়ে এলাকার লোকজনের মধ্যে চরম আতঙ্কে বিরাজ করছে। আমরা প্রশাসনসহ সরকারের উর্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে এ জলদস্যু মিজান খাঁ’র দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।

এদিকে মানববন্ধন শেষে প্রেসক্লাবের সামনে চেয়ারম্যানের লোকজন ও মানববন্ধনে আসা লোকদের মধ্যে বাকবিতন্ডা ও উত্তেজনা সৃষ্ঠি হয়। প্রায় আধাঘন্টা ধরে এ উত্তেজনা চলতে থাকে। এসময় মানববন্ধনকারীরা চেয়ারম্যানের নানা অপকর্মের কথা বলতে থাকে। পরতে স্থানীয়দের সহায়তায় সেটি নিয়ন্ত্রনে আসে।

এদিকে অভিযুক্ত ইউপি চেয়ারম্যান মো. মিজানুর রহমান খাঁ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমার ইউনিয়নে প্রায় ৪০ হাজার লোকের বসবাস। সরকারি বরাদ্দ যা আসে এদিয়ে সকলকে সন্তুষ্ট করা সম্ভব হয় না। যার ফলে আমার প্রতিপক্ষ গ্রুপ আমাকে রাজনৈতিকভাবে হেয় করতে বিভিন্ন লোকদের দিয়ে পরিকল্পিতভাবে এসব অপপ্রচার চালাচ্ছে।

আবদুল মালেক/ভোলা