আসামের নাগরিকত্ব তালিকা (এনআরসি) বাতিল হতে পারে। পার্লামেন্টে এমনটাই ইঙ্গিত করেছেন ভারতীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও ক্ষমতাসীন বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ। ২১ নভেম্বর বৃহস্পতিবার রাজ্যসভায় অমিত শাহ জানিয়েছেন, গোটা দেশের সঙ্গে নতুন করে আসামের নাগরিকত্ব তালিকা প্রকাশ করা হবে। এর সূত্র ধরে আবার আসামের অর্থমন্ত্রী হিমন্তবিশ্ব শর্মাও তালিকা বাতিলের কথা বললেন। তিনি উল্লেখ করেন, রাজ্যে হওয়া এনআরসি পুরোপুরি বাতিল করে সারাদেশের সঙ্গে নতুন করে আবার করা হোক।

সুপ্রিম কোর্টের নজরদারিতে আসামে হওয়া এনআরসির চূড়ান্ত তালিকা থেকে বাদ যান প্রায় ১৯ লাখ মানুষ। এতে বিভিন্ন জনগোষ্ঠীর পাশাপাশি বড় অস্বস্তিতে পড়েন শাসক দল বিজেপির নেতাকর্মীরাও। নাম বাদ পড়ায় দলটির শীর্ষ নেতাদের অবগত করেন তারা। এছাড়া হিন্দু সম্প্রদায়ের চাপও সৃষ্টি হচ্ছিল বিষয়টি নিয়ে। এ পরিস্থিতিতে তা বাতিলের কথা বলে বিতর্কেও পড়লেন অমিত শাহ। তার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন বিরোধী দলের নেতারা।

অবশ্য সরকারের এ সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে এনআরসি মামলার মূল আবেদনকারী আসাম পাবলিক ওয়ার্কস। কেননা, তাদের দাবি ছিল সব তথ্য আবার যাচাই করা হোক। আসছে ২৬ নভেম্বর নিজেদের মামলার পরের শুনানি সামনে রেখে সংগঠনের সভাপতি অভিজিৎ শর্মা বলেন, এক হাজার ৬০০ কোটি রুপি খরচের সম্পূর্ণ অডিটও করা হোক।

দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের যুক্তি, আসাম চুক্তি অনুযায়ী ১৯৭১ সালের ২৪ মার্চকে এই এনআরসি তৈরির ভিত্তিবর্ষ বলে ধরা হয়। কিন্তু ভবিষ্যতে দেশের অন্য সব রাজ্যে যখন এনআরসির কাজ শুরু হবে, তখন অতীতের আরেকটি দিনকে ধরে তার ভিত্তিতে তালিকা তৈরি করতে হবে। এতে করে এক দেশে দুটি ভিত্তিবর্ষ হয়ে যাচ্ছে। যা হতে পারে না। তাই গোটা দেশের যে ভিত্তিবর্ষ ধরা হবে, সে হিসেবে আবার আসামে নতুন তালিকা তৈরি করা হবে।

কোন বছরের কোন তারিখের ভিত্তিতে এই কাজ শুরু হবে, তা এখনও ঠিক হয়নি। তবে ১৯৭১ সালের ২৪ মার্চ আর ভিত্তিবর্ষ হচ্ছে না।

আজকের পত্রিকা/সিফাত