আরিচা রোডে ৪ কিলোমিটার জুড়ে ট্রাকের দীর্ঘ সারি

পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌ-রুটে যানবাহনের চাপ বৃদ্ধি পাওয়ায় পাটুরিয়াগামী ট্রাকের দীর্ঘ সারি এখন আরিচা রোডে। মহাসড়কের উপর ট্রাক দাড় করিয়ে রাখায় এ রোডে চলাচলকৃত যানবাহনগুলোর স্বাভাবিক চলাচল ব্যাহত হচ্ছে।

দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে যাত্রী ও যানবাহন শ্রমিকদেরকে।

আরিচায় বিআইডব্লিউটিএ’র তিনটি ট্রাক টার্মিনাল ফাঁকা পড়ে রয়েছে। এসব ট্রাকগুলো উক্ত টার্মিনালে রাখলে আরিচা রোডে কোন যানজটের সৃষ্টি হতো না বলে স্থানীয়রা মনে করছেন।

বুধবার সকালে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের উথলী ইন্টারসেকশন থেকে আরিচা ঘাট পর্যন্ত ৫কিলোমিটার এলাকা জুড়ে ট্রাকের দীর্ঘ সারি দেখা গেছে। এদিকে নদী পার হওয়ার জন্য দক্ষিণ-পশ্চিমা লের জেলাগুলো থেকে ছেড়ে আসা পন্যবাহী ট্রাকগুলোকে দৌলতদিয়া ঘাট থেকে ১৫কিলোমিটার দুরে রাজবাড়ী ও ফরিদপুর মহাসড়কের গোয়ালন্দ মোড়ে আটকিয়ে রাখা হচ্ছে। ফলে দৌলতদিয়া ঘাট এলাকা এবং টার্মিনাল ফাঁকা রয়েছে।

যাত্রীবাহী যানবাহনগুলো সহজেই পারাপার হতে পারছে। যত ভোগান্তি পণ্যবাহী ট্রাক শ্রমিকদের। দিনের পর দিন রাস্তার উপর অটকে থাকতে হচ্ছে তাদেরকে। এতে খাবার-দাবার, পয়:নিস্কাসনসহ নানাবিধ অসুবিধায় পড়তে হচ্ছে এসব ট্রাক চালক ও শ্রমিকদেরকে।

আরিচায় বিআইডব্লিউটিএ’র তিনটি ট্রাক টার্মিনাল ফাঁকা পড়ে রয়েছে।

বিআইডব্লিউটিসি সুত্রে জানা গেছে, নাব্যতা সংকটের কারণে গত মঙ্গলবার (১৫ অক্টোবর) বিকাল থেকে কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া নৌরুটে অনির্দিষ্টকালের জন্য ফেরি চলাচল বন্ধ ঘোষণা করেছে কর্তৃপক্ষ। এ সংকট নিরসন না হওয়া পর্যন্ত বিকল্প হিসেবে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া ঘাট ব্যবহার করার পরামর্শ দিয়েছে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী ঘাট কর্তৃপক্ষ। ফলে মঙ্গলবার সন্ধ্যা থেকে এ নৌ-রুটে যানবাহানের চাপ বৃদ্ধি পেয়েছে।

পাটুরিয়া ঘাট এলাকা যানজট মুক্ত রেখে নির্বিঘ্নে যাত্রীবাহী যানবাহন পারাপার করার লক্ষ্যে, পণ্যবাহী ট্রাকগুলোকে উথলী ইন্টারসেকশন এলাকা থেকে ডাইভার্ট করে আরিচার দিকে পাঠিয়ে মহাসড়কের উপর দাড় করিয়ে রাখছে পুলিশ। এতে ঢাকা-আরিচার মধ্যে চালাচলকৃত যানবহনগুলোকে স্বাভাবিক চলাচলে ভীষণ অসুবিধা হচ্ছে। রাস্তায় যানজটের সৃষ্টি হয়ে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে যাত্রীদেরকে। ট্রাকগুলোকে আরিচা টার্মিনালে রাখলে এবং আরিচায় বিকল্প ফেরি ঘাট চালু করলে হয়তো এ ভোগান্তি থেকে অতি দ্রুত পরিত্রাণ পাওয়া যেতে বলে অনেকেই মনে করছেন।

ট্রাক চালক মো. কামাল হোসেন বলেন, সে গত মঙ্গলবার দুপুরে পণ্যবোঝাই করে মাগুরা যাওয়ার উদ্দেশ্যে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসেন। সন্ধ্যায় পাটুরিয়া মোড়ে আসলে পুলিশ ট্রাক থামিয়ে আরিচার দিকে পাঠিয়ে দেয়। সাড়া রাত তার ট্রাক এ রাস্তার উপরই দাড়িয়ে করিয়ে রাখতে হয়। বুধবার সকালেও পাটুরিয়া ঘাটের দিকে যেতে পারেননি তিনি।কখন পারাপার হতে পারবেন,তা বলতে পারছেন না তিন।

অপর ট্রাক চলাক মো. সিদ্দিক মিয়া বলেন, সে গত মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১০টার দিকে ঢাকা থেকে ছেড়ে রাত ৩টার দিকে উথলী সংযোগ মোড়ে আসলে পুলিশ তার ট্রাকটি আটকিয়ে দেয়।

ফেরি ঘাটে যাওয়ার জন্য বুধবার সকালেও তাকে আরিচা ঘাটের কাছে মহাসড়কের উপর সারিবদ্ধভাবে অপেক্ষায় থাকতে হচ্ছে। ট্রার্মিনাল এবং ঘাট এলাকা ফাঁকা থাকা সত্বেও কেন তাদেরকে রাস্তার উপর আটকিয়ে রাখা হচ্ছে তা বলতে পারছেন না তারা।

ট্রাক শ্রমিক আবুল হোসেন বলেন, তাদের ট্রাক কুষ্টিয়া যাওয়ার উদ্দেশ্যে গত মঙ্গবার রাতে নারায়নগঞ্জ থেকে ছেড়ে আসে। সকালে পাটুরিয়া সংযোগ মোড়ে আসলে তাদের ট্রাকটি পুলিশ আটকিয়ে আরিচার দিকে পাঠিয়ে দেয়।আমাদের আগে ট্রাকের যে সাড়ি দেখছি তাতে আজ বুধবার সাড়া দিনেও ঘাটে যেতে পারবো কিনা বলতে পারছিনা। আর কত দিনে ফেরির নাগাল পাবো তাও বলতে পারছিনা।

এদের মতো শত শত ট্রাকের চালক ও শ্রমিকদেরকে ফেরি পারাপার হতে না পেরে পণ্যবোঝাই ট্রাক নিয়ে মহাসড়কের উপর আটকে থাকতে হচ্ছে। এতে গন্তব্যে পৌছাতে তাদের অনেক সময় লাগছে। একদিনের স্থলে ২/৩দিন করে সময় লাগছে তাদের। এতে একদিকে তারা নিজেরা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে অপরদিকে ব্যবসায়ীরাও আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে।

ভুক্তভোগী ট্রাকচালকরা অভিযোগ করে বলেন, টার্মিনাল এবং ঘাট এলাকা ফাঁকা থাকা সত্বেও তাদেরকে কেন ঘাট থেকে ১০/১৫কিলোমিটার দুরে মহাসড়কের উপর আটকিয়ে রাখা হচ্ছে তা তারা বুঝতে পারছেন না। এতে তাদের খাবার-দাবার, পয়ঃনিস্কাশনসহ নানাবিধ অসুবিধায় পড়তে হচ্ছে। তাদের এ ভোগান্তি নতুন কিছু নয়।

মাঝে মধ্যেই এরকম ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে তাদেরকে। কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন বলে তাদের অভিযোগ। তাই কখন যে এ ভোগান্তির অবসান হবে তা বলতে পারছেন না তারা।এ পরিস্থিতে আরিচায় বিকল্প ফেরি ঘাট চালুর দাবী জানান এসব ভুক্তভোগী ট্রাক চালক ও শ্রমিকরা।

বিআইডব্লিউটিসি’র ম্যানেজার মো. সালাউদ্দিন বলেন, আমাদের পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে আপাতত কোন সমস্যা নেই। নাব্যতা সংকটের কারণে গত মঙ্গলবার (১৫ অক্টোবর) বিকাল থেকে কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া নৌরুটে অনির্দিষ্টকালের জন্য ফেরি চলাচল বন্ধ ঘোষণা করেছে কর্তৃপক্ষ। ওই রোডের যানবাহনগুলো এ রুটে আসায় চাপ পড়েছে। কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া নৌরুটে ফেরি চলাচল স্বাভাবিক হলে এ সমস্যা থাকবে না বলে তিনি জানান।

শাহজাহান বিশ্বাস/মানিকগঞ্জ