শুভ্র কান্তি দাশ সাগর

শুভ্র কান্তি দাশ সাগর

 

আমি পথের ভিখারী বলে কি সমাজে আমার ঠাঁই নেই!

কেনো সমাজ আমার সাথে এমন করে?এভাবে নিষ্ঠুরের মতো তাড়িয়ে দেয়, আমি কে অন্যায় করেছি ভিখারী হয়ে পৃথিবী এসে_ আমার আসা টা কি এই পৃথিবীর নাট্যমঞ্চে ভুল চরিত্র!

ভিক্ষা করে খাওয়া টা তো একটা পেশা আমার ভিক্ষা করার সাথে তো আমার একা না পৃথিবীতে থাকা একটি ভিক্ষুকের পরিবার চলে সমাজ কেন বুঝে না!

দুই টাকা খুঁজতে গেলে তারা এতো নিষ্ঠুরের মতো কেন বকে আমি কি মানুষ নই !

মহান উপরওয়ালা যখন আমাকে পৃথিবীতে পাঠিয়েছেন এই রুপে আমাকে তো এটাকে পুঁজি করেই চলতে হবে, সমাজের সাহায্য নিয়েই তো আমার জীবনধারণ এই সুশীল ভদ্রসমাজের কাছেই যে আমার হাত পেতে চাইতে হয় ৷

খুব কষ্ট হয় যখন কারো কাছে দুইটা টাকা খুঁজলে যখন কেউ বকে অনেকে বা মারধোর করে, কিন্তু আমি তো সমাজের নিচুস্তরের লোক আমি সুশীল সমাজে গ্রহণ যোগ্য না !

শরীরের প্রত্যেকটি অঙ্গে তাদের অত্যাচারের চিহ্ন তাদের নিকৃষ্ট মানবিকতার পরিচয় তারা আমার গায়ে ফুটিয়ে তুলেছে, তারা এটি করে নিজেকে অনেক বড় ভাবে !

আমি কি তাদের কোনো ক্ষতি করেছি না এই সমাজের জন্য বোঝা হয়ে আসছি?
কোনোদিন কি আমার মতো হাজারো ভিক্ষুক সমাজের ঠাঁই হবে এই পৃথিবীতে !

দিনশেষে যখন বাড়ি যাই সারাদিনের কষ্টের রোজগার করা টাকা গুলো গুণতে বসি, যখন দেখি দু বেলা খাবারের টাকাই জমাতে পারি নাই তখন খুব কষ্ট হয়। তারপরেও তো বেঁচে থাকতে হবে! কারণ জীবনযুদ্ধে আহত সৈনিকের ব্যাথা পাওয়ার অভিনয়টুকু করা সাজে না!

যখন দু বেলা খেতে হিমশিম খাই তখন গায়ে সমাজের চিহ্নগুলো আর তাদের দেওয়া আশীর্বাদ(ব্যথা) নিয়ে ঘুমিয়ে পড়ি, পরের দিন প্রতিদিনের ন্যায় ক্ষুধার তাগিদে সমাজের কাছে অত্যাচারের কথা ভেবে, এইভাবেই চলে দিনের পর দিন তারপরে ও ভিক্ষুকদের দেখার কেউ নেই!

অথচ ধনবানরা একটু হাত খুলে দিলেই আমাদের হয়ে যায়, কেন এতো সম্পদের প্রাচুর্য বাড়াও? মৃত্যুর পর সাথে নিয়ে যেতে পারবে?

আমি আপনাদের মতো শিক্ষিত নই কিন্তু আমি জানি ভিক্ষাবৃত্তি সামাজের জন্য অভিশাপ স্বরূপ। কিন্তু ভিক্ষা কেউ ইচ্ছা করে, করে না। একটা মানুষের জন্য যখন সমাজের সকল দরজা বন্ধ হয়ে যায়, একটা মানুষের জন্য যখন বেঁচে থাকাটাই জীবনে এক মাত্র লক্ষ্য হয় তখনই মানুষ সব থেকে নিকৃষ্টতম পথ বেছে নেয়.. আমাদের অবস্থাটাও তেমন।

আমরা ভিক্ষুক কিন্তু আমরা ও মানুষ আমাদের ও আবেগ, ভালোবাসা, অনুভূতি আছে। আমরা তো বেশি কিছু চাই না শুধু দুবেলা দু মুঠো খেয়ে বাঁচতে চাই.. আমাদের জন্য সব থেকে বড় অভিশাপ বেঁচে থাকা…

হ্যাঁ প্রিয় সমাজ আমরা মানুষ আমাদের তুচ্ছ করবেন না ৷