নোয়াখালীর সুবর্ণচরে ধর্ষণের শিকার হওয়া গৃহবধূ ও তার পরিবারকে দেখতে গেছেন আশরাফুল আলম ওরফে হিরো আলম। শনিবার সকালে তিনি নোয়াখালী ২৫০ শয্যা হাসপাতালে গিয়ে তাদের সঙ্গে দেখা করেন তিনি।
নির্যাতিতা গৃহবধূকে নিজের বোন বলে সম্বোধন করে হিরো আলম বলেন, গরীব গরীবের দুঃখ বোঝে, তাই আমি এতোদূর থেকে ছুটে এসেছি। নির্যাতনকারীদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করছি। চাই তাদের ফাঁসি হোক, এমন ঘটনা যেন আর বাংলার ঘরে না ঘটে।
হিরো আলম আরও বলেন, ‘নির্বাচনের দিন আমাকেও মারধর করা হয়েছে। আমার বিচার পরে, আগে আমার এই বোনের অপরাধীদের বিচার করেন।’
হাসপাতাল থেকে হিরো আলম পরে সুবর্ণচরে নির্যাতিতা গৃহবধূর বাসায় যান। সেখানে তার মেয়ের সাথে কথা বলেন ও সান্তনা দেন।
উল্লেখ্য, গত ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হয় একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। এদিন সুবর্ণচরের ওই গৃহবধূ ধানের শীষ মার্কায় ভোট দিয়ে ফেরার সময় তাকে দেখে নেওয়ার হুমকি দেন আওয়ামী লীগ নেতা রুহুল আমিন। এরপর রাতে রুহুল আমিনের নেতৃত্বে ১০ জন মিলে ওই গৃহবধূর বাড়িতে গিয়ে তার স্বামী ও সন্তানদের বেঁধে রেখে তাকে বাইরে নিয়ে গিয়ে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ করেন। এছাড়া ওই দম্পতি এবং তাদের সন্তানদের পিটিয়ে জখম করেন তারা।
এরপর সকালে সেই নারীকে উদ্ধার করে ২৫০ শয্যার নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তখন হাসপাতালের চিকিৎসকরা সেই নারীকে গণধর্ষণ ও পিটিয়ে জখম করার আলামত পাওয়ার কথা জানান। পরে এ নিয়ে সেই নারীর স্বামী চরজব্বার থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।