অর্থের প্রাচূর্যতায় হয়ে ওঠেন ক্ষমতাবান। নিজ বাড়িতে দেশের বিভিন্ন প্রান্তের পতিতাদের দিয়ে দিধারছে চালিয়ে যাচ্ছেন অবৈধ ব্যবসা। আর তাই পতিতালয় হিসেবে এলাকার সকলের কাছে এক নামে পরিচিতি পায় সিরাজের বউ আলপনা।

বলছিলাম কোনাবাড়ী পূর্বপাড়া এলাকার দাপুটে আলপনা বেগমের কথা। যিনি আবাসিক বাসার ভিতরে প্রায় চার বছর যাবত সমাজের সাবাইকে ফাঁকি দিয়ে বাসা ভাড়ার নাম করে খুলছে দেহ ব্যবসার কারখানা।

এ বিষয়ে এলাকার কেউ প্রতিবাদ করলে তাকে উল্টো ভয় ভীতি দেখান আলপনা। বেশ কয়েকবার পুলিশের অভিযান হয়েছে এই বাড়িতে।

এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে স্থায়ী বাসিন্দা আনোয়ার হোসেন সরকার জানান, আমরা এলাকাবসী এ বিষয়টি নিয়ে খুব লজ্জা বোধ করছি। আমাদের এলাকায় অনেক গুলো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। যেহেতু এই এলাকাবাসীর আয়ের উৎস বাড়ি ভাড়া। অথচ এলাকায় এই ধরনের অনৈতিক কর্মকান্ডের জন্য কেউ এই এলাকায় বাসা ভাড়া নিতে চাচ্ছে না।
দিন দিন এলাকার ছেলে মেয়ে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে এই পরিবেশের জন্য। তাই এলাকাবাসী উদ্যোগ নেন এই অনৈতিক কর্মকাণ্ড বন্ধের।

এলাকার আরেক স্থায়ী বাসিন্দা নাম গোপন রাখার শর্তে জানান, আমরা এলাকাবাসী ক্ষুব্ধ হয়ে বৃহস্পতিবার ১৫আগস্ট সন্ধ্যার পরে বাড়ির গেটের সামনে অবস্থান নেই। যখনই আলপনার বাড়ি থেকে এক-এক করে খদ্দের বের হচ্ছে তখনই আমরা হাতেনাতে তাদের আটক করে কোনাবাড়ী থানা পুলিশকে খবর দেই।

খবর পেয়ে কোনাবাড়ী থানার এস আই আব্দুল জলিল ও তার ফোর্স নিয়ে আলপনার বাড়িতে অভিযান চালিয়ে আলপনা সহ আরো পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, বাড়ির মালিক মৃত সিরাজুল ইসলামের স্ত্রী আলপনা (৩০), চাঁদপুর জেলার সদর থানার হরিনা বাজারের আসলাম বেপারীর ছেলে রফিক আলম (৩৪) ওরফে বাদল মিয়া, নয়ন তারা (২০),কাইয়ুম (২২), সাইদুল (২৪) এবং ওই বাড়ির স্থায়ী ভাড়াটিয়া দিপালী রানী (২৭)।

এ ব্যাপারে কোনাবাড়ী থানার পরিদর্শক তদন্ত কলিন্দ্রনাথ গোলদার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন কোনাবাড়ীতে আর কখনো এমন অপকর্ম করতে দেয়া হবেনা। এদের বিরুদ্ধে কোনাবাড়ী থানায় মানব পাচার প্রতিরোধ ও দমন আইন ২০১২ এর বিভিন্ন ধারায় মামলা দায়ের করে আদালতে প্রেরণ করা হয়।

আদালতের নির্দেশে তাদেরকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।

এদিকে এই খবর শুনে কোনাবাড়ী পূর্ব আনন্দের অনুভূতি প্রকাশ অনেকেই। এলাকাবাসী অনুভূতিতে কোনাবাড়ী থানার সকলকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। আবার এলাকাবাসী কেউ কেউ আশংকা করছে বের হয়ে হয়তো আবারো আগের মতোই এই অবৈধ ব্যবসা চালু করবে আলপনা।