শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মুন্নজান সুফিয়ান। ছবি : সংগৃহীত

শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান বলেছেন, ‘আন্তর্জাতিক অভিবাসন নিরাপদ, নিয়মিত এবং মানবিক হতে হবে’।

১৭ জুন সোমবার রাতে জেনেভায় আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা-আইএলও প্রতিষ্ঠার শততম বার্ষিকীর ১০৮তম ‘সেন্টেনারি’ শ্রম সম্মেলনের প্ল্যানারি সেশনে বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

শ্রম প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্বের কাজের ধারণ দ্রুত পরিবর্তন হচ্ছে। প্রত্যেক পরিবর্তনই নতুন সুযোগ এবং চ্যালেঞ্জ নিয়ে আসে। এই পরিবর্তনকে গ্রহন করে এগিয়ে যেতে হবে। নতুন প্রযুক্তি জনসংখ্যার স্থানান্তর , অভিবাসন এবং জলবায়ু পরিবর্তন কাজের ধরণ পরিবর্তনের মূল চালিকা শক্তি’ ।

তিনি বলেন, ‘ জলবায়ু পরিবর্তনে গ্রীন জবের চাহিদা বাড়ছে। আগামীতে গ্রীন জব গ্রীন অর্থনীতি চালাবে’।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘চাহিদার দিক বিবেচনায় শ্রমিকদের সময় উপযোগী কাজে দক্ষ হতে হবে। যুবকদের দক্ষতা উন্নয়নে আমাদের আরো বিনিয়োগ করতে হবে, তবে সে শিক্ষা হতে হবে জীবনব্যাপী শিক্ষা’।

তিনি আরও বলেন, নতুন প্রযুক্তির কারণে অনেক কাজ হারিয়ে যাবে। নতুন কাজের সৃষ্টি হবে। এজন্য আমাদের শ্রমিকদের জন্য দক্ষতা উন্নয়নের পাশাপাশি কার্যকরী শিক্ষা এবং মানব সম্পদ উন্নয়ন নীতি অত্যন্ত গুরুপূণর্’।

প্রতিমন্ত্রী তাঁর বক্তব্যে কর্মক্ষেত্রের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা সরকারের অগ্রাধিকার উল্লেখ করে বলেন, ‘সরকার গার্মেন্টস কারখানার সংস্কার তদারকির জন্য ২০১৭ সালে ‘সংস্কার সমন্বয় সেল’-আরসিসি গঠন করে। সরকার আরসিসিকে খুব শীঘ্রই একটি স্থায়ী শিল্প নিরাপত্তা ইউনিট হিসেবে গড়ে তুলবে’।

তিনি বলেন, ‘সরকার জাতীয় সামাজিক সুরক্ষা কৌশল গ্রহন করেছে, শ্রম আইন, ইপিজেড শ্রম আইন যুগোপযোগী করে শ্রম বান্ধব করেছে এবং শোভন কাজের পরিবেশ নিশ্চিতে কাজ করছে’।

জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে ১৯৭২ সালে আইএলও এর সদস্যপদ লাভ করে। বর্তমান সরকার অনেক সীমাবদ্ধতা আর চ্যালেঞ্জ অতিক্রম করে শ্রম অধিকার এবং কর্মক্ষেত্রের নিরাপত্তার উন্নয়নে নিরলস কাজ করছে বলে প্রতিমন্ত্রী উল্লেখ করেন।

এছাড়া শ্রম প্রতিমন্ত্রী তাঁর বক্তৃতায় আইএলও এর প্রতিষ্ঠার শততম বর্ষের শ্রম সম্মেলনের ঐতিহাসিক মুহুর্তে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শুভেচ্ছা পৌছে দেন এবং এ সম্মেলনের সফলতা কামনা করেন।

আজকের পত্রিকা/আর.বি/