পার্বত্য চট্টগ্রামে আবহমান কাল ধরে লালিত ঐতিহ্যবাহী কৃষ্টি ও সংস্কৃতির অংশ প্রধাণ ৩টি আদিবাসী সমাজের বর্ষবরণ উৎসব। ত্রিপুরাদের কাছে বৈসুব, বৈসু বা বাইসু , মারমাদের কাছে সাংগ্রাই এবং চাকমা ও তঞ্চঙ্গ্যাদের কাছে বিজু নামে পরিচিত। তার সাথে পালন করা হয় বাঙালিদের চৈত্র সংক্রান্তি ও বর্ষবরণ উৎসব। পাহাড়ি জনগোষ্ঠীর পাশাপাশি বাঙালি জনগোষ্ঠীও উপভোগ করেন আদিবাসী সমাজের বর্ষবরণ উৎসব।

১৯৮৫ সাল থেকে পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত তিন সম্প্রদায়ের বিভিন্ন সংগঠনের সম্মিলিত উদ্যোগে ‘বৈসাবি’ নামে পালন করছে বর্ষবরণ উৎসব। সময়ের ব্যবধানে নিজ নিজ সম্প্রদায়ের লোকদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে ‘বৈসাবি’ নামটি। মারমা, চাকমা ও ত্রিপুরা, সম্প্রদায় তাদের নিজস্ব নামে ‘মারমা ভাষায় সাংগ্রাই, ত্রিপুরা ভাষায় বৈসু এবং চাকমা ভাষায় বিজু’ নামে পালন করে বর্ষবরণ উৎসব। আর বৈসাবী নামকরনও করা হয়েছে এই তিনটি উৎসবের প্রথম অক্ষর গুলো নিয়ে। বৈ শব্দটি ত্রিপুরাদের বৈসু থেকে, সা শব্দটি মারমাদের সাংগ্রাই থেকে এবং বি শব্দটি চাকমাদের বিজু থেকে। আর এই তিন শব্দের সম্মিলিত রূপ নিয়ে হয়েছে ‘বৈসাবি’।

ত্রিপুরা, মারমা ও চাকমা ছাড়াও পার্বত্য চট্টগ্রামে তঞ্চঙ্গ্যা,বম, খিয়াং, লুসাই, পাংখোয়া, খুমি, আসাম, চাক ও রাখাইনসহ অন্যান্য ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীগুলো নিজস্ব বৈশিষ্ট্য নিয়ে তাদের ভাষা-সংস্কৃতি ও অবস্থানকে বৈচিত্রময় করে করে তুলতে প্রতি বছর চৈত্রের শেষ দিন থেকে পালন করে ‘বৈসাবি’ উৎসব।

বৈসাবি উৎসব

পাহাড়ে ঘরে ঘরে শুরু হয়েছে বৈসাবির খুশি। ১২ এপ্রিল শুক্রবার থেকে শুরু হয়েছে তিন দিনের বৈসাবি (বৈসুক, সাংগ্রাই ও বিজু) উৎসব। ভোরে পানিতে ফুল ভাসিয়ে শুরু হয় উৎসব। বৈসাবি উপলক্ষে রাঙ্গামাটিসহ তিন পার্বত্য জেলায় পালিত হচ্ছে বর্ণাঢ্য কর্মসূচি।

রাঙ্গামাটিতে শুক্রবার সকাল ৮টা থেকে কাপ্তাই হ্রদে ফুল ভাসিয়ে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠি সম্প্রদায় শুরু করে তিন দিনব্যাপী বৈসাবি উৎসবের শুভ সূচনা। খাগড়াছড়িতে গঙ্গাদেবীর উদ্দ্যেশ্যে ফুল ভাসানোর মাধ্যমে শুক্রবার ফুলবিঝুর মধ্য দিয়ে শুরু হয় পাহাড়ে বৈসাবি উৎসবের মূল আনুষ্ঠানিকতা। তবে ১৩ এপ্রিল শনিবার শুরু হচ্ছে পাহাড়ি মারমাদের বর্ষবরণ উৎসব সাংগ্রাই বা বৈসাবি। উৎসবকে ঘিরে পোশাক কেনা-কাটা ও ঘরবাড়ি গোছানোসহ বান্দরবানের মারমাদের সব প্রস্তুতি প্রায় শেষ। চারিদিকে এখন সাজ সাজ রব। পুরো পার্বত্য বান্দরবানে বিরাজ করছে উৎসবের আমেজ।

বাংলা বছরের শেষ দুইদিন ও বাংলা নববর্ষের প্রথম দিন চলবে পাহাড়ে বর্ষবরণ ও বর্ষ বিদায়ের বৈসাবি উৎসব। ভোর হওয়ার সাথে সাথে শিশু-কিশোর, তরুণ-তরুণীসহ বিভিন্ন বয়সী আদিবাসীরা বিভিন্ন এলাকা থেকে ফুল সংগ্রহ করে চেঙ্গীনদী ও খাগড়াছড়ির বিভিন্ন খালে বৌদ্ধকে স্মরণ করে ফুল ভাসিয়ে দেয়। তারপর তারা গঙ্গাদেবীর পূজা করে। শিশু-কিশোররা আনন্দ উল্লাস করে উদযাপন করছে ফুল বিজু। যেন পাহাড়িরা পেছনের দু:সহ অতীত ভুলে গিয়ে এবার উৎসব মুখরতায় বৈসাবি উৎসব পালন করছেন। খাগড়াছড়ির বিভিন্ন গ্রাম মহল্লা, শহর শহরতলীতে হচ্ছে ঐতিহ্যবাহী পাহাড়ি খেলাধুলা, গড়াইয়া নৃত্যসহ সাংস্কৃতিক বিভিন্ন অনুষ্ঠান।

বিজু উৎসব

বিজু চাকমা আদিবাসী সম্প্রদায়ের অন্যতম প্রধান আনন্দ-উৎসব। বাংলা বছরের শেষ দুই দিন ও নববর্ষের দিন এই উৎসব পালন করা হয়। ১২ এপ্রিল পালন করা হয় ফুলবিজু। এই দিন ভোরের আলো ফুটার আগেই ছেলেমেয়েরা বেরিয়ে পড়ে ফুল সংগ্রহের জন্য। সংগ্রহিত ফুলের একভাগ দিয়ে বুদ্ধকে পূজা করা হয় আর অন্যভাগ পানিতে ভাসিয়ে দেওয়া হয়। বাকি ফুলগুলো দিয়ে ঘরবাড়ি সাজানো হয়। চৈত্র মাসের শেষ দিন অর্থাত্‍ ১৩ এপ্রিল পালন করা হয় মুলবিজু। এইদিন সকালে বুদ্ধমূর্তি গোসল করিয়ে পূজা করা হয়। ছেলেমেয়েরা তাদের বৃদ্ধ দাদা-দাদী এবংনানা-নানীকে গোসল করায় এবং আশীর্বাদ নেয়। এই দিনে ঘরে ঘরে বিরানী সেমাই পাজন (বিভিন্ন রকমের সবজির মিশ্রণে তৈরি এক ধরনের তরকারী) সহ অনেক ধরনের সুস্বাদু খাবার রান্না করা হয়। বন্ধুবান্ধব আত্নীয়স্বজন বেড়াতে আসে ঘরে ঘরে এবং এসব খাবার দিয়ে তাদেরকে আপ্যায়ন করা হয়। সারাদিন রাত ধরে চলে ঘুরাঘুরি। বাংলা নববর্ষের ১ম দিন অর্থাত্‍ ১৪ এপ্রিল পালন করা হয় গজ্যা পজ্যা দিন (গড়িয়ে পড়ার দিন)। এই দিনেও বিজুর আমেজ থাকে।

চাকমা ও তঞ্চঙ্গ্যাগণ এ উৎসবটি ৩দিন হলেও চৈত্রের শেষ দিনটি এই উৎসবের মূল আকর্ষণ। এ দিন ঘরে ঘরে পাঁচ প্রকারের সবজি সহকারে বিশেষ খাদ্য পাঁচন রাধা হয়। তাঁরা বিশ্বাস করেন এই পাঁচনের দৈব গুণাবলী আগত বছরের অসুস্থতা ও দুর্ভাগ্য দূর করবে। এদিন বিকেলে খেলা হয় ঐতিহ্যবাহী খেলা ঘিলা, বৌচি ইত্যাদি। তরুণীরা পানিতে ফুল ভাসিয়ে দেয়। বিজু উৎসবের এই ৩দিন কেউ কোনো জীবিত প্রাণী বধ করেন না।

বৈসাবি উৎসব। ছবি : সংগৃহীত

সাংগ্রাই উৎসব

মারমা আদিবাসীরা বর্ষবরণের এই উৎসব পালন করেন সাংগ্রাই নামে। ৪দিন ধরে চলে এ উৎসব। মারমাগণ সবাই বুদ্ধএর ছবি সহকারে নদীর তীরে যান এবং দুধ কিংবা চন্দন কাঠের জল দিয়ে এ ছবিটিকে স্নান করান। তারপর আবার এই ছবিটিকে আগের জায়গায় অর্থাৎ মন্দির বা বাসাবাড়িতে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। মারমা সম্প্রদায় সেই আদিকাল থেকে অন্যান্য সম্প্রদায় থেকে ভিন্ন আঙ্গিকে পুরনো বছরের বিদায় এবং নতুন বছরের আগমনকে স্বাগত জানাতে বিভিন্ন অনুষ্ঠান পালন করে আসছে, যা মারমা ভাষায় সাংগ্রাই নামে পরিচিত। মূলত ‘সাক্রাই’ (সাল) শব্দ থেকেই ‘সাংগ্রাই’ শব্দ এসেছে বলে ধারণা করা হয়। যা বাংলাই ‘সংক্রান্তি’ বলে পরিচিত। মারমা সম্প্রদায়ের ‘সাংগ্রাই জ্যা’র (মারমা বর্ষপঞ্জি) গঠনের মাধ্যমে সাংগ্রাইয়ের দিন ঠিক করা হয়ে থাকে। মাইংমা ১৩৫৯ খ্রিস্টাব্দের আগে থেকেই এ ‘সাক্রাই’ বা সাল গণনা করা হয়, যা ‘জ্যা সাক্রই’ নামে পরিচিত।

সাংগ্রাইয়ের উৎপত্তি নিয়ে মারমা ভাষায় বিভিন্ন কল্পকাহিনী বিদ্যমান রয়েছে, যা এখনো মারমা বয়োজ্যেষ্ঠদের মুখে মুখে প্রচলিত। কবে থেকে মারমাদের সাংগ্রাই উদ্যাপন শুরু হয় এ ব্যাপারে সঠিক কোনো ইতিহাস এখনো পাওয়া যায়নি। সাংগ্রাই উৎসবটি মারমারা তিন দিনব্যাপী উদ্যাপন করে। সাংগ্রাইয়ের প্রথম দিনকে মারমা ভাষায় ‘সাংগ্রাই আক্যা’ বা ‘পাইং দোয়াক’ (সাংগ্রাইয়ের প্রথম দিন পুষ্প আহরণ)। দ্বিতীয় দিনকে ‘সাংগ্রাই বাক্’ (সাংগ্রাইয়ের দিন) এবং তৃতীয় দিনকে ‘সাংগ্রাই আপ্যাইং’ (সাংগ্রাই বিদায়) নামে পরিচিত। এই তিন দিন মারমারা নানা ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠান, খেলাধুলা, খাওয়া-দাওয়ার আয়োজন করে।

সাংগ্রাইয়ের প্রথম দিন বা পুষ্প আহরণের মারমারা নিজেদের বাড়ি, বাড়ির আঙিনা ও আশপাশের রাস্তা পরিষ্কার করে। এদিন মারমারা সবাই মিলে পবিত্র সূত্রাদি পাঠের মাধ্যমে বিহার পরিষ্কার করে থাকে।

সাংগ্রাই উৎসব। ছবি : সংগৃহীত

সাংগ্রাইয়ের দিনে খুব ভোর থেকে গ্রামে গ্রামে মারমাদের মধ্যে নিজ নিজ উদ্যোগে পুষ্প আহরণের ধুম লাগে। এদিন যে যত বেশি পুষ্প আহরণ করে বুদ্ধের কাছে পুষ্পপূজা করতে পারবে সে তত বেশি পুণ্য অর্জন করবে বলে মারমাদের বিশ্বাস। সাংগ্রাইয়ের তিন দিনকে উপলক্ষ করে অনেকে বিহারে গিয়ে তিন দিনের জন্য অষ্টমশীল পালন করে উপাসনা করেন। আবার অনেকে এদিন খুব ভোরে বিহারে গিয়ে বুদ্ধকে উদ্দেশ্য করে ‘অংরুং ছোইং’ (ভিক্ষুদের সবার খাবার) দান করেন। বিহারে অবস্থানরত ভিক্ষুরা এদিন ধর্ম দেশনা দিয়ে থাকেন। দুপুর গড়ালে ‘দোয়াইং’ (ভিক্ষুদের দুপুরের খাবার)-এর দানানুষ্ঠান শুরু হয়। অতঃপর ভিক্ষুদের দোয়াইং গ্রহণ শেষ হলে বিকেলে ‘নাইংসা’ (সুগন্ধিকাব বিশেষ)-এর পানি, ডাবের পানি দিয়ে বুদ্ধ স্নান অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

সাংগ্রাই আপ্যাইং বা সাংগ্রাইয়ের বিদায়ের দিন মারমাদের কাছে নতুন বছরের শুরু বলে ধারণা করা হয়। এদিনেও পুষ্পপূজা, দোইংতা (আহার দান) করা হয়। এদিনে বিহারে আসা পুণ্যর্থীদের মধ্যে পিঠা বিতরণ করা হয়। গ্রামে গ্রামে প্রতিবেশীদের মধ্যে পিঠা বিনিময় করা হয়। একে অন্যের বাড়িতে গিয়ে পিঠা খাওয়ার ধুম পড়ে যায়। এদিন গ্রামে বয়োজ্যেষ্ঠদেরও পিঠা দান করা হয়।

ত্রিপুরাগণ শিবের পূজা ও তাঁর কাছে ক্ষমা প্রার্থণার মাধ্যমে বৈসুক দিবসটি পালন করেন। বৈসাবি উৎসবে রান্না হয় মূলত আদিবাসীদের প্রধান ও জনপ্রিয় খাবার ‘গণত্মক বা পাচন’ এ খাবার সবার ঘরে রান্না হয়। এর পাশাপাশি নানা ধরনের পিঠা, সেমাই, মুড়ি-চানাচুরসহ বিভিন্ন ধরনের ফলমূল ও ঠাণ্ডা পানীয়র আয়োজন করা হয়। মিশ্র শাকসবজি রান্না হয় মূলত ২৫ থেকে ৩০ ধরনের সবজির সংমিশ্রণে। তবে বর্তমানে পার্বত্য চট্টগ্রামে বনজঙ্গলের পরিমাণ কমে যাওয়ায় সবজির ধরনের পরিমাণও কমে যাচ্ছে।

তবে প্রতিটি এলাকাতেই কমবেশি জনপ্রিয় পানি উৎসব। এটিও বৈসাবী উৎসবেরই একটি অংশ। বৈসাবী উৎসবে আদিবাসীরা সবাই সবার দিকে পানি ছুঁড়ে উল্লাসে মেতে ওঠেন যেন গত বছরের সকল দুঃখ, পাপ ধুয়ে যায়। তার আগে অনুষ্ঠিত হয় জলপূজা। কারণ জলপূজার মাধ্যমে পরস্পরের বন্ধন দৃঢ় হয়। তাছাড়া মারমা যুবকরা তাদের পছন্দের মানুষটির গায়ে পানি ছিটানোর মাধ্যমে সবার সামনে ভালোবাসা প্রকাশ করে। এর মাধ্যমে পরস্পরের বন্ধন দৃঢ় হয়। তা ছাড়া মারমা যুবকরা তাদের পছন্দের মানুষটির গায়ে পানি ছিটানোর মাধ্যমে সবার সামনে ভালোবাসা প্রকাশ করে। ভালোবাসার এমন বর্ণাঢ্য উচ্ছ্বাস, এমন বর্ণাঢ্য অনুভূতি আর কোন ‘গান্ধর্ব্য’ শুধু বৈসাবিতেই সম্ভব।

আজকের পত্রিকা/আ.স্ব/