পূর্ণ সূর্যগ্রহণ

আজ পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণ। বাংলাদেশ সময় রাত ১০টা ৫৫ মিনিট ১৮ সেকেন্ডে এটি শুরু হবে। শেষ হবে রাত ৩টা ৫০ মিনিট ৩৬ সেকেন্ডে।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, সূর্য ও চন্দ্র যখন একই সরল রেখায় অবস্থান করে তখনই ঘটে সূর্যগ্রহণ। পূর্ণগ্রাস যখন ঘটে, তখন সূর্য ও পৃথিবীর মাঝ বরাবর চাঁদ চলে আসে। এতে চাঁদের আড়ালে সূর্য ঢাকা পড়ে যায়।

চাঁদকে তখন অনেক বড় দেখায়। সূর্যগ্রহণে চাঁদ সূর্যকে সম্পূর্ণ ঢেকে ফেলতে পারে। এতে কোনো কোনো স্থানে তখন পূর্ণ সূর্যগ্রহণ দেখা দেয়। এ সময় সূর্য পুরোপুরি ঢাকা পড়ে যাওয়ার দৃশ্য চোখে ধরা পড়ে। দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরের ফ্রেঞ্চ পলিনেশিয়ার মুতুওয়ারা দ্বীপের বাসিন্দা আর বলিভিয়ার বাসিন্দারা দেখতে পাবেন এবারের পূর্ণগ্রাস। রাত হওয়ায় বাংলাদেশের আকাশে সূর্যগ্রহণ দেখা যাবে না।

বিএমডির আবহাওয়াবিদ নাইমা বাতেন স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে গ্রহণটির গতিপথ সম্পর্কে বলা হয়েছে, যখন গ্রহণ শুরু হবে তখন এর অবস্থান থাকবে দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরের ফ্রেঞ্চ পলিনেশিয়ার মুতুওয়ারা দ্বীপের দক্ষিণ-পূর্ব দিকে। কেন্দ্রীয় সূর্যগ্রহণ শুরু হবে দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরের নিউজিল্যান্ডের উত্তর-পশ্চিম দিকে। সর্বোচ্চ গ্রহণ হবে দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরে পেরুর পশ্চিম দিকে। কেন্দ্রীয় গ্রহণকালে অবস্থান থাকবে আর্জেন্টিনার লিব্রে দেল সউদ শহরে।

গ্রহণ শেষের দিকে অবস্থান থাকবে বলিভিয়ার মরুকু শহরের দক্ষিণ-পূর্ব দিকে। সূর্য ও চন্দ্রের একই সরলরেখায় উপনীত হওয়ার সময়টা পৃথিবীর একেক স্থানে একেক সময় দেখা যায়।

আবহাওয়া অধিদফতরের (বিএমডি) এক বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, আজ রাত ১০টা ৫৫ মিনিট ১৮ সেকেন্ডে সূর্যগ্রহণ শুরু হবে। রাত ১২টা ২ মিনিট ১৮ সেকেন্ডে কেন্দ্রীয় সূর্যগ্রহণ শুরু হবে। সর্বোচ্চ গ্রহণ হবে ১টা ২৩ মিনিটে। গ্রহণকালটির স্থায়িত্ব হবে ৪ মিনিট ৩৮ সেকেন্ড। কেন্দ্রীয় গ্রহণ শেষ হবে রাত ২টা ৪৩ মিনিট ৩৬ সেকেন্ডে। রাত ৩টা ৫০ মিনিট ৩৬ সেকেন্ডে সম্পূর্ণ গ্রহণ শেষ হবে।

আজকের পত্রিকা/এমএআরএস