তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। ছবি: সংগৃহীত

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে দুই দিনব্যাপী ‘এলআইসিটি সাস্ট টেক ফেস্ট ২০১৯’ এর শেষ দিনে ‘টেক টক উইথ পলক’ শীর্ষক অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়েছে।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, ‘আইসিটির ছোঁয়ায় বাংলাদেশ ঘুরে দাঁড়িয়েছে। বিভিন্ন সেক্টরে আইসিটির অবাধ প্রবেশের কারণে লাখো তরুণের কর্মসংস্থান হয়েছে।’

‘টেক টক উইথ পলক’ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন তিনি। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. আনোয়ারুল ইসলাম, শিক্ষাবিদ অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক আরো বলেন, ‘আমরা ইতিমধ্যে ৪০টি বিশ্ববিদ্যালয়ে আইসিটি ল্যাব করেছি। অচিরেই অন্তত ১৩০টি বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশেষায়িত ল্যাব স্থাপন করবো।’

তিনি বলেন, ‘সমাজের অনিয়ম ও দুর্নীতি থামানোর অন্যতম উপায় হচ্ছে খাতগুলোতে আইসিটির ব্যবহার। যেমন ‘ই জিপি’ চালু হওয়ার পর থেকেই টেন্ডার বাণিজ্য অনেকটাই কমে গেছে।’

পলক বলেন, ‘ইনোভেশন ডিজাইন এন্ট্রাপ্রেনেয়ার একাডেমি (আইডিয়া) এর মাধ্যমে আমরা তরুণদের কর্মসংস্থানে বিরাট ভূমিকা রাখছি। দশ বছর আগেও যেখানে ৫৬ লাখ লোক মাত্র ইন্টারনেটের আওতায় ছিলো, আজ সেখানে দশ কোটির মতো মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করে। আমরা ২০২০ সালের মধ্যে সাড়ে চার হাজার ইউনিয়নকে ব্রডব্যান্ডের আওতায় আনবো।’

তিনি আরো বলেন, ‘গার্মেন্ট ও রেমিট্যান্স এর পর তৃতীয় বৃহত্তম বৈদেশিক মুদ্রা আমদানির ক্ষেত্র হয়ে উঠছে আইসিটি খাত। আমরা এখন আর তলাবিহীন ঝুড়ি না, সব সেক্টরেই ঘুরে দাঁড়িয়েছে বাংলাদেশ। আমরা উদ্যোক্তাদের সব ধরনের সহায়তা দিচ্ছি। আমরা চাকরি প্রার্থী চাই না, এমন লোক চাই যে চাকরি সৃষ্টি করতেই বেশি উদগ্রীব।’

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সিএসই, ইইই ও সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ যৌথভাবে এই ফেস্টের আয়োজক হিসেবে রয়েছে।

দেশের সরকারি-বেসরকারি ৫৪টি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ১২শ বিজ্ঞানপ্রেমী শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণে এ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। টেক ফেস্টে আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা, সফটওয়্যার, রোবো ফাইটসহ পাঁচটি প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার সুযোগ রয়েছে।

আজকের পত্রিকা/জেবি