আটক ঈমাম।

মৌলভীবাজারের বড়লেখায় আবিদা সুলতানা (৩৫) নামের এক নারী আইনজীবী কে হত্যার অভিযোগে অভিযুক্ত আসামি তারই ভাড়াটিয়া তানভীর আলম (৩৫) কে আটক করেছে শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশ।

২৭ মে সোমবার দুপুরে শ্রীমঙ্গল উপজেলার কালাপুর ইউনিয়নের বরুনা মাদ্রাসার পাশ্ববর্তী একটি বাড়ী থেকে তাকে আটক করে পুলিশ। ঘাতক তানভীর আলম সিলেটের জকিগঞ্জ এলাকার ময়নুল ইসলামের ছেলে। সে বড়লেখা উপজেলার মাদবকুল জামে মসজিদের ইমামতি করতো।

এদিকে আইনজীবী আবিদা সুলতানা হত্যার প্রতিবাদে এবং খুনিকে আটক ফাঁসির দাবীতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে জেলার আইনজীবীরা।

২৭ মে সোমবার মৌলভীজাবার আইনজীবী সমিতির উদ্যোগে দুপুরে কোর্ট বর্জন, আদালত চত্ত্বরে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেন। পরে আইনজীবী সমিতির সভাপতি এ এস এম আজাদুর রহমানের সভাপতিত্বে এবং এডভোকেট কামরেল আহমেদ চৌধুরীর সঞ্চালনায় প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা বারের সাবেক সভাপতি এডভোকেট শান্তপদ ঘোষ, এডভোকেট রমাকান্ত দাস গুপ্ত, সাবেক সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মিজানুর রহমান মিজান, এডভোকেট রাধাপদ দেব সজল, এডভোকেট ডাডলি পেন্ট্রেস, এডভোকেট তপন পাল তনু ও এডভোকেট আলতাফুর রহমান সুমন প্রমুখ।

রোববার রাত আনুমানিক আড়াইটার দিকে উপজেলার দক্ষিণভাগ উত্তর ইউপির মাধবগুল গ্রামের পৈতৃক বাড়ি থেকে আবিদা সুলতানার মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহত আইনজীবী আবিদা উপজেলার দক্ষিণভাগ উত্তর ইউপির মাধবগুল গ্রামের মৃত আব্দুল কাইয়ুমের মেয়ে। তিনি মৌলভীবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের আইনজীবী ও বার এসোসিয়েশন এর সদস্য। আবিদার স্বামী শরীফুল ইসলাম একটি ওষুধ কোম্পানীতে কর্মরত। তিনি স্বামীর সঙ্গে মৌলভীবাজারে শহরে বসবাস করতেন।

শ্রীমঙ্গল থানার ওসি আব্দুছ সালেক, শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশ ঘটনার পর থেকে রাতভর অভিযান চালায়, এবং পুলিশ সদস্যরা হুজুরের ছদ্মবেশ ধরে মাদ্রাসার শিক্ষক ও ছাত্রদের সহযোগিতায় তাকে আটক করে।

আজকের পত্রিকা/এমএআরএস