মাহমুদ উল্লাহ্‌
বিজনেস করেসপন্ডেন্ট

এলুমিনিয়াম ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন এর সংবাদ সম্মেলন। ছবি: সংগৃহীত

‘অ্যালুমিনিয়াম তৈজসপত্র’ খাতে উৎপাদনে বিদ্যমান ভ্যাট অব্যাহতি আগামী অর্থবছরেও রাখার দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশে এলুমিনিয়াম ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন।

সোমবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ) মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি তুলে ধরেন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

সংগঠনের সভাপতি ওবায়দুর রহমান বলেন, অ্যালুমিনিয়াম তৈজসপত্র খাতে উৎপাদনে মূসক অব্যাহতি বিদ্যমান না রাখলে এ খাতে হাজার হাজার শ্রমিক ও ব্যবসায়ী ক্ষতিগ্রস্ত হবে এবং কারখানা বন্ধ হয়ে যাবে।

দেশে উৎপাদিত অ্যালুমিনিয়াম তৈজসপত্র (হাঁড়ি, পাতিল) নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য হিসেবে ব্যবহার করে থাকে। ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে এই খাতকেও ভ্যাটের অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

ওবায়দুরের আশঙ্কা, ভ্যাট অব্যাহতি সুবিধা না থাকলে বাংলাদেশের এলুমিনিয়ামের বাজার ভারতের দখলে চলে যাবে, কেননা ভারতে অ্যালুমিনিয়ামের খনি রয়েছে।

তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক বাজারে এমনিতেই অ্যালুমিনিয়ামের কাঁচামালের দাম বাড়ছে, মূসক অব্যাহতি বহাল না হলে প্রতি কেজিতে সাধারণ মানুষকে ৫০ থেকে ৬০ টাকা বেশি দাম দিয়ে কিনতে হবে।

অ্যালুমিনিয়াম উৎপাদনে ভ্যাট না থাকলেও কাঁচামাল আমদানিতে ১৫ শতাংশ ভ্যাট রয়েছে বলে জানান ওবায়দুর। তিনি বলেন,‘বাজেট প্রস্তাবে অ্যালুমিনিয়াম তৈজসপত্র খাতে উৎপাদন পর্যায়ে চলমান মূসক অব্যাহতি তুলে নেওয়া বর্তমান উন্নয়নমুখী ও উৎপাদনবান্ধব সরকারের নীতির সাথে সংগতিপূর্ণ নয়।

ভ্যাট নিয়ে ছোট ছোট কারখানাগুলোও হয়রানির শিকার হবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেন এলুমিনিয়াম শিল্পে জড়িতরা।

সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশে এলুমিনিয়াম ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব এ টি মোস্তফা, শাহজাহান ফকির, জিয়া উদ্দিন, আবদুস সালাম মোল্লা উপস্থিত ছিলেন।

আজকের পত্রিকা/এমইউ