আসাদুজ্জামান স্বপ্ন
সিনিয়র রিপোর্টার

একাদশ জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনের আওয়ামী লীগ মনোনীত নীলফামারীর রাবেয়া আলীম। ছবি : সংগৃহীত

নীলফামারী মহিলা আওয়ামী লীগের দুর্দিনের কাণ্ডারি রাবেয়া আলীম। তিনি নীলফামারী থেকে সংরক্ষিত আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন। স্বাধীনতার পর প্রথম সৈয়দপুরের কোনো মহিলা নেত্রী সংরক্ষিত আসনে মনোনয়ন পেলেন। প্রায় ৩০ বছর থেকে নীলফামারী জেলা শাখার সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন তিনি। দলীয় সকল কর্মকাণ্ডে সরব থাকা রাবেয়া আলীম নীলফামারী-৪ (সৈয়দপুর-কিশোরীগঞ্জ) সংসদীয় আসনের সাবেক এমপি ও মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক মরহুম আলিম উদ্দিনের সহধর্মিণী।

একাদশ জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনের জন্য মনোনীত করায় দলীয় প্রধান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানান রাবেয়া আলীম। তিনি বলেন, আমি যা কিছু করবো জনগণের জন্য করবো। যারা গরিব-অসহায় তাদের জন্য সব কাজ করবো এবং তাদের নিয়ে আমি কাজ করবো।

মাদক বন্ধ করার বিষয়ে রাবেয়া আলীম বলেন, ‘মাদক বন্ধ করতে আমি আমার এলাকার প্রত্যেক পরিবারের সদস্যদের সাথে বৈঠক করবো। সবার আগে বাবা-মাকে সচেতন হতে হবে। আমি পরিবারের বাবা-মাকে সচেতন করবো। পাশাপাশি প্রত্যেক পরিবারের সাথে থেকে মাদকবিরোধী সচেতনতা বাড়াতে কাজ করবো।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি অন্যায়-অবিচার কখনো মেনে নিবো না। আমি যা কিছুই করবো জেনে শুনে করবো।’

নিজের এলাকা নীলফামারী নিয়ে রাবেয়া আলীম বলেন, ‘আমার এলাকার জন্য যা প্রয়োজন আমি তা করবো। মনে করেন, এমন একটি প্রতিষ্ঠান করবো যেখানে সাধারণ ও অসহায় মানুষদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হবে। আয়-রোজগারের ব্যবস্থা হবে। যাতে তারা সুন্দরভাবে জীবন-যাপন করতে পারে।’

তিনি আরও বলেন, আমি অসহায় মানুষদের জন্য কাজ করবো। অসহায় মানুষদের স্বাবলম্বী করার চেষ্টা করবো।

রাবেয়া আলীম জাতীয় মহিলা সংস্থা নীলফামারীর চেয়ারম্যান ছাড়াও বাংলাদেশ রেডক্রিসেন্ট সোসাইটিসহ বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনের সঙ্গে জড়িত রয়েছেন।

সৈয়দপুরের আওয়ামী লীগসহ সর্বস্তরের মহিলাদের জন্য ব্যাপক কাজ করেছেন রাবেয়া আলিম। তিনি নীলফামারীকে অসহায় মানুষদের স্বাবলম্বী করতে সবার দোয়া কামনা করেছেন। সৈয়দপুর আওয়ামী লীগের নেতা-নেত্রীসহ সাধারণ মানুষ রাবেয়া আলিমকে নারী সংসদ সদস্য হিসেবে চূড়ান্ত করার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে কৃতজ্ঞ প্রকাশ করেছেন। তাদের বিশ্বাস, রাবেয়া আলিম অঞ্চলের দলীয় ও সামগ্রিক উন্নয়নে সর্বাত্মকভাবে ভূমিকা রাখার সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে।

একাদশ জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনের নির্বাচনের জন্য জমা দেয়া সব প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ১২ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার বেলা ১১টায় মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই শেষে  সব প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বৈধ বলে ঘোষণা করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা আবুল কাসেম।

যাচাই-বাছাইয়ের সময় প্রার্থীদের স্বাক্ষর না দেয়াসহ ‘ছোটখাট’ ভুল-ত্রুটি আমলে নেয়া হয়নি বলে জানিয়েছেন ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ ও রিটার্নিং কর্মকর্তা আবুল কাসেম। ১১ ফেব্রুয়ারি সোমবার সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত নির্বাচন কমিশনে রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেয়া হয়। যাচাই-বাছাই শেষে প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ১৬ ফেব্রুয়ারি। ভোটগ্রহণ ৪ মার্চ।