প্রতারণা। প্রতীকী ছবি

কালিয়াকৈর উপজেলার মৌচাক এলাকায় অভিনব কায়দায় প্রতারণা ঘটনা ঘটছে। মঙ্গলবার (২৫ই জুন) সকাল আনুষ্ঠানিক এগারোটার দিকে মৌচাক দোকান পাড় এলাকায় একটি ছিনতায়ের ঘটনা ঘটে।

কোনাবাড়ি এম এম নীটওয়্যার লিঃ এর অ্যাকাউন্ট ম্যানেজার কামরুজ্জামান জানান, আমার বাবা হাজী আলতাফ হোসেন (৭২) ও মা হাজী আমির জাহান বেগম (৬৮) তারা আমার বোনের বাসা সফিপুর আনসার একাডেমির ভিতর থেকে আমার বাড়িতে আসছিলেন। হঠাৎ করে দেখন রাস্তায় কোন রিক্সা নেই। পাশে থাকা একটি লোক দৌড়ে এসে বললেন আপনারা কোথায় যাবেন। উত্তরে বললেন আমাদের ছেলের বাসায় যাব। ওই লোক বললো কোথায় আপনার ছেলের বাসা।

তারা বলেন, দোকান পাড়। লোকটি বললো যাওয়া যাবে না। জানেন না আজকের এলাকায় রোহিঙ্গা ঢুকছে। যার কারণে তল্লাশি হচ্ছে এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে।

লোকটি বলল আপনার গ্রামের বাড়ি কোথায় ?।

তারা বলেন, আমার গ্রামের বাড়ি ভোলা। লোকটি বলল, আমার গ্রামের বাড়িও ভোলা। চলেন ওখানে আমাদের ওসি স্যার আছে ওসি স্যারের কাছে গিয়ে পারমিশন নিয়ে, দেখি আপনাকে একটা টোকেন দেওয়া যায় কিনা। তাহলে আপনি আপনার ছেলের বাসায় চলে যেতে পারবেন, এই বলে লোকটি ওসি সাহেবের কাছে নিয়ে গেল।

তারা গিয়ে দেখেন মসজিদের পাশে একটি লোক বসা, উনি হলেন ওসি সাহেব। ওই লোকটি বললেন, স্যার তারা আমাদের গ্রামের লোক, স্যার তাদের একটা টোকেন দিলে, তারা বাসায় যেতে পারে। এই বলে তাদের হাতে একটি টোকেন দেন ওসি সাহেব।

ওসি সাহেব বললেন, আপনাদের কাছে যা যা আছে সবগুলো খুলে রেখে চলে যান।

কামরুজ্জামানের এর মা-বাবা সহজ, সরল বিদায় তারা সব মালামাল রেখে চলে গেলেন এবং তার মার হাতের রুলি, গলার চেইন, হাতের আংটি এগুলো এখানে রাখেন, ওসি সাহেব আরো জানতে চান আপনাদের কাছে কোন বিদেশি ডলার আছে কিনা, থাকলে সেগুলো রেখে যান।

উত্তরে তারা বলেন আমাদের কাছে কোন ডলার নেই। তারপর তারা বাসার উদ্দেশ্যে রওনা হলো। হঠাৎ পিছনের দিকে ফিরে দেখেন ওখান থেকে সকলেই উধাও হয়ে চলে গেছেন সেই ওসি নামক ছিনতাইকারী চক্রটি।

এ বিষয়ে মৌচাক ফাঁড়ির ইনচার্জ ইন্সপেক্টর শহিদুল ইসলাম শহিদ জানান, আমরা এখনো কোনো অভিযোগ পাইনি। ভুক্তভোগীর অভিযোগ পেলে অবশ্যই আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবো এবং চক্রটিকে ধরার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করব।

আজকের পত্রিকা/শহিদুল ইসলাম