প্রেমিক সাঈদ ও তার প্রেমিকা।

বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে অনশনের পরেও প্রেমিককে বিয়ে করাতে ব্যর্থ হওয়ায় প্রেমিকসহ ৪ জনের নামে মামলা করেছে তরুণী।

বৃহস্পতিবার বিকালে সাতক্ষীরা থানায় মামলাটি করেছেন সাতক্ষীরা সদরের আগরদাড়ি ইউনিয়নের বাঁশঘাটা গ্রামের মঞ্জিলা খাতুন(২৪)।

মামলার আসামীরা হলেন, বাঁশঘাটা গ্রামের রেজাউল ইসলামের ছেলে প্রেমিক আবু সাঈদ, আবু সাঈদের বোন সাবিহা খাতুন, আবু সাঈদের সহযোগী একই গ্রামের শাহিন ও ইমরান হোসেন।

মঞ্জিলা খাতুন বলেন ‘ সাঈদের সাথে আমার টানা ছয় বছর ধরে প্রেম। তার সাথে আমার প্রতিনিয়ত মোবাইলে কথা হতো।

বিয়ের আশ্বাস দিয়ে সাঈদ আমার সাথে একাধিকবার শারীরিক সম্পর্ক করেছে। আমাকে অন্য কোথাও বিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করলে আবু সাঈদ তাও ভেঙ্গে দিয়েছে।

সম্প্রতি আমি তাকে বিয়ের কথা বললে সে আমাকে বিয়ে করতে পারবেনা বলে জানায় এবং আমার সাথে যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়। ছয় দিন আগে

বিয়ের দাবিতে আমি সাঈদের বাড়িতে গিয়েছিলাম। তখন সাঈদের সাথে আমাকে বিয়ে দেবে এই আশ্বাসে সাঈদের পরিবারের সদস্যরা আমাকে বাড়িতে পাঠায়। এরপর বিভিন্নভাবে আমাকে হুমকি দিতে শুরু করলে গত মঙ্গলবার আবারও আমি সাঈদের বাসায় যায়। তখন সাঈদের পরিবারের সদস্যরা আমাকে মারপিট করে। আমার মোবাইল ফোন ভেঙে দেয়। তারপরও আমি বিয়ের দাবি নিয়ে তাদের বাসার গেটে দাঁড়িয়ে থাকি।

ওইদিন রাত সাড়ে আটটার দিকে সদর থানা পুলিশ সঠিক বিচারের আশ্বাস দিয়ে আমাকে থানায় নিয়ে আসে। এরপরও সাঈদ আমাকে বিয়ে করতে রাজি না হওয়ায় আজ আমি ন্যায় বিচারের আশায় সাঈদসহ ৪ জনের নামে মামলা করেছি।

সাতক্ষীরা থানার পুলিশ পরিদর্শক( তদন্ত) মহিদুল ইসলাম বলেন, মঞ্জিলা খাতুনের মামলাটি নথিভুক্ত করা হয়েছে। দ্রুত সময়ের মধ্যেই আসামীদের আইনের আওতায় আনা হবে।

আজকের পত্রিকা/এমএআরএস